পর্ন-আসক্তি কত ধ্রুপদী প্রেমিক, মৌলিক মানুষ আর স্নিগ্ধ নারীদের হৃদয় ভেঙেছে, কত মমতাময়ীদের পাখির নীড়ের মতো চোখে অশ্রুর ঝুম বৃষ্টি নামিয়েছে, কত রঙিন স্বপ্ন মুকুলেই ঝরে গেছে এই আসক্তির কারণে, তার কোনো হিসেব কি কেউ কোনোদিন করেছে?
শিশুনির্যাতন, ধর্ষণ, অজাচার, হত্যা, মানবপাচার, মাদক, এইডস, সমকামিতা, হতাশা, আত্মহত্যা, বিবাহবিচ্ছেদ, হত্যা… এটি এমনই এক নির্দয় পৃথিবী।
আপনাকে স্বাগতম!
যে জীবন ছিল ঘাসফুল আর মাতৃসম রুপালি জলের ঘ্রাণ নেয়ার, ফাগুনের অনন্ত নক্ষত্রবীথির নিচে দাঁড়িয়ে তারা গোনার, ফড়িং আর প্রজাপতির পেছনে দৌড়ে বেড়ানোর, যে জীবন ছিল আলিফ লায়লা আর সিন্দাবাদের, যে জীবন ছিল ফাঁদ পেতে শালিক ধরার, পুকুরে বড়শি ফেলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকার, যে জীবন ছিল রূপকথার খেলাঘরে হারিয়ে যাবার, সেই জীবনে ভর করল অনেক জটিলতা, অস্থিরতা। অনাবিষ্কৃত আকাঙ্ক্ষাগুলো একে একে আবিষ্কৃত হলো, সেই আকাঙ্ক্ষাগুলো বিকৃত উপায়ে পূরণ করে দিতে এগিয়ে এল প্রযুক্তি।
আমরা ভাঙতে থাকলাম। আমরা হারিয়ে গেলাম ভুল স্রোতে।
এক আকাশ শ্রাবণের সঙ্গে আজীবন সখ্যতা হলো আমাদের।
আমরা নষ্ট হলাম।
ভাই আমার, অন্ধকার রুমে একা একা বসে পর্ন দেখে আর হস্তমৈথুন করে হতাশা আর অস্থিরতায় জীবনটা দুর্বিষহ করে তুলছ কেন? রুম থেকে একটু বের হও। দেখো কত সুন্দর একটা পৃথিবী তোমার জন্য অপেক্ষা করে আছে। বন্ধুদের সাথে আড্ডা দাও, দলবেঁধে ঘুরতে যাও, সবুজ ঘাসের ওপর খালি পায়ে হাঁটো, শুয়ে থেকে আকাশ দেখো, বৃষ্টিতে ভেজো, মাঠে খেলাধুলা করো, সাইক্লিং করো, দৌড়াও। খুব বেশি হতাশ লাগলে, মন খারাপ হলে মসজিদে যাও। তাক থেকে কুরআনের একটা কপি তুলে নাও। যেকোনো পেইজ বের করে পড়তে শুরু করো, দেখবে হতাশা, মন খারাপ কোথায় পালিয়ে যাবে! স্রেফ মসজিদে বসে থাকলেও দেখবে মন ভালো হয়ে যাবে।
আশরাফুল মাখলুকাত তুমি, সকল সৃষ্টির সেরা, সুন্দরতম। তুমি কেন হবে পরাজিত? আল্লাহর প্রতিনিধি হয়ে পৃথিবীতে এসেছ তুমি… মানুষকে মানুষের দাসত্ব থেকে মুক্তি দিয়ে আল্লাহর দাসে পরিণত করতে। সেই তুমিই কেন পর্ন,হস্তমৈথুনের দাসে পরিণত হবে? তুমিই না খুব অহংকার করে বল মাই লাইফ, মাই চয়েস, মাই রুলস ? সেই অহংকারী তোমার জীবনটাকেই কেন নিয়ন্ত্রণ করবে পর্ন, হস্তমৈথুন? কেন তোমার সুখের প্রহরগুলো ভিজে যাব আক্ষেপের অশ্রুতে?
ভাই আমার, নীল অন্ধকারে আর কতোকাল মাথাকুটে মরবে? কেন তুমি শুরু করছোনা আলোর পথে তোমার সেই অভিযাত্রা? কবে তুমি বের হবে মুক্ত বাতাসের খোঁজে? একবার বের হয়েই দেখনা… মিতালি হবে ঘাসফড়িং আর শিশিরের সঙ্গে।পাবে নীলাকাশ, ঘাসফুল। পাবে মাটি,মানুষ, মৌলিক ভালোবাসা।
পাবে ধ্রুপদী আনন্দ।
আনন্দম আনন্দম আনন্দম……

খুলে দাও হৃদয়ের দ্বার (দ্বিতীয় পর্ব)

আসসালামু আলাইকুম। ভাই আপনাদের প্রতি অনুরোধ আমার এই লেখাটা ছাপাবেন। এটা আমার জীবনে ঘটে যাওয়া সত্যি একটা ঘটনা। এতে যদি উম্মাহর কোনো তরুণ বা তরুণী উপকৃত হয় তবেই আমার লেখা সার্থক। আমার হস্তমৈথুনের অভ্যাসটা শুরু হয়েছিল ক্লাস সেভেন থেকে। তখন বয়স ১২ কি ১৩ বছর। একদিন বাথ্রুমে...

খুলে দাও হৃদয়ের দ্বার (প্রথব পর্ব)

আহ্নিক গতির উছিলায় সময়টা এখন রাত। কীরকম একটা হতাশা কাজ করছে আমাদের ছেলেটার ভেতর। আমাদের সেই ছোট্ট ছেলেটা - যে বাবার হাত ধরে শুক্রবারে জুমুআয় যেতো। ছোটোবোনকে মাছের মাথাটা দিলে কেঁদে বুক ভাসাতো। রাতের বেলা দাদীর বুকে মাথা রেখে কেচ্ছা-কাহিনী শুনতো। একটু হাঁটার পর যে...

স্বর্গের দিন! স্বর্গের রাত! (ষষ্ঠ পর্ব)

দশ. সিস্টেম ওয়ার্কস। এটা দেখার জন্য পশ্চিমা দেশগুলো ভালো জায়গা। আমেরিকাও এর মধ্যে অন্যতম। মানুষ এই একটি কারণে এখান থেকে যেতে চায় না। সুবিধায় অসুবিধা বোঝে না। জাগতিক সুবিধা জীবনের জন্য জরুরী।  জীবন যদি এখানেই শেষ হয়ে যেত, তাহলে বেশ মজা হতো। এই মজায় যারা মজে যায়, তাদের...

স্বর্গের দিন! স্বর্গের রাত! (পঞ্চম পর্ব)

পাঁচ. আমেরিকা একটা অদ্ভুত জায়গা । এখানে পাগলের সংখ্যা অনেক। এ পাগল গাড়ি চালায়। স্মার্টফোনে কথা বলে। কাজ করে। খায়। দেখে বোঝার উপায় নেই। কথা বললেই বুঝে আসে। কথার খেই পাওয়া যায় না।  কখন যে পাগল হয়ে  গেছে, সে নিজেও জানে না। তাদের বাড়ি থেকেও নাই। পরিবার থাকলেও কাছে পায়না। ...

স্বর্গের দিন স্বর্গের রাত (চতুর্থ পর্ব)

[১] জীবনের সব প্রথমই মানুষ মনে রাখে। স্বাদ বিস্বাদ যা-ই হোক । প্রথম বিস্বাদ যত তীব্র হয়, স্বাদ তত মজার হয় না। এজন্য বার বার ফিরে পেতে চায়।  পায়ও। সারাজীবনেও  আর সেই প্রথমকে ভুলতে পারেনা। পঞ্চমবার আমেরিকায় এসে প্রথমবারের কথা মনে হচ্ছে। সেইবার ডালাসে যে ধর্মীয় পরিবেশ...

স্বর্গের দিন স্বর্গের রাত!( তৃতীয় পর্ব)

ছোটবেলা থেকেই বিদেশী মুভি দেখা বা বই পড়ার কারণে বিদেশ (স্পেশালি নর্থ আমেরিকা, ইউরোপ) এবং বিদেশের জীবন নিয়ে একটা ফ্যাসিনেশন থাকে সবার। ওয়েল, সবার থাকে কি না বলতে পারি না, অন্তত আমার ছিল। ওখানকার মানুষদের প্রতি মৃদু ইর্ষাও হত যে তারা ছোটবেলা থেকেই কি চমৎকার পরিবেশে,...

নীড়ে ফেরার গল্প (সপ্তম কিস্তি)

আসসালামু আলাইকুম অন্ধকারকে আলো ভেবে জড়িয়ে ধরা ছেলেটার গল্প এটি। মরীচিকাকে সে ছুঁতে চাইতো, মিথ্যাকে আপন ভেবে গায়ে মাখাতো, বুকের মধ্যে পুষে রাখতো অভিশপ্ত এক জঞ্জালকে। . ছোটবেলা থেকেই আমাদের 'ছেলেটা' ভালো স্টুডেন্ট ছিলো। একেবারে, মায়ের চোখের মনি, বলতে গেলে সবার চোখের...

নীল রঙের অন্ধকার (দশম কিস্তি)

আমি তখন তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ি। মা বাবার সাথে থাকতাম।পড়ালেখায় মোটামুটি ছিলাম।আমার বাবা একটু বদমেজাজি টাইপের ছিলেন।ছোটোকাল থেকেই তিনি পড়ালেখার জন্য কঠোর প্রকৃতির ছিলেন।পরীক্ষায় একটু ভুল করলেই তুলকালাম কান্ড শুরু করতেন। সবার সামনে অপমান করা, তুলনা করা, গালি দেওয়া এগুলো...

নীড়ে ফেরার গল্প (ষষ্ঠ কিস্তি)

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম এগারো আমি আদনান। গ্রামের সহজ, সরল ছেলে।ছোট থেকে আমার অভ্যাস ছিল বন্ধুদের সাথে খেলাধুলা ও ছোটা -ছোটি করা।স্কুল থেকে বাড়িতে ফিরে বই গুলো টেবিলে রেখে সোজা মাঠে।এই ভাবে সময় গুলো অতিক্রম করছিলাম। তখনও আমি পর্নোগ্রাফি সম্পর্কে একে বারে অজ্ঞ।একদিন...

নীড়ে ফেরার গল্প (পঞ্চম কিস্তি)

বিসমিল্লাহির রহমানীর রহীম নয়. বয়স আমার ২৬ তখন ক্লাশ সেভেনে পড়ি৷ একদিন এক বন্ধু তার বাসায় আমন্ত্রণ করলো কি এক জিনিস দেখাবে সেইটার জন্য। আমি যখন বাসায় ঢুকলাম দেখলাম বাসায় ওর বাবা-মা কেউ নেই৷ কাজের মেয়েটাও নাই। আর  সোফাসেটে আমার পরিচিত কয়েকটি মুখ বসা (বন্ধু-বান্ধব) সেই...

লস্টমডেস্টি

আমরা লস্টমডেস্টি গ্রুপ, কাজ করছি অশ্লীলতা আর নোংরামির বিরুদ্ধে। আমাদের প্রত্যাশা সেদিনের যেদিন আমাদের ভাই আর বোনগুলো হবে কলঙ্ক মুক্ত, নিষ্পাপ। আমরা স্বপ্ন দেখি সুন্দর ঝলমলে সোনালি সকালে ছেয়ে যাক প্রতিটি তরুণ-তরুণীর জীবন।

দিনপঞ্জিকা

January 2019
S S M T W T F
« Dec    
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  

পোস্ট আর্কাইভ