হলিউডের মুভির মতোই আমরা এক সুপারহিরোর জন্য অপেক্ষা করি। ভাবি কোনো একদিন আমরা আয়রনম্যান, সুপারম্যানের মতো হিরো পাবো আর তারপর সব চেইঞ্জ হয়ে যাবে। বদলে যাবে। ভালোবাসা আবার ফিরে আসবে মানুষের হৃদয়ে হৃদয়ে। এখন যেভাবে চলছে চলুক, অবেলায় নিভে যাক অযুত কোটি তরুন-তরুনী, আত্মহত্যা করুক বেকার বোকা যুবকের দল, পরিযায়ী পাখি আর প্রজাপতিরা ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে যাক তাতে আমার কী? আমি তো কিছুই পরিবর্তন করতে পারব না! এগুলোর জন্য আল্লাহ্‌ তো আমাকে পাকড়াও করবেননা ! দায়িত্ব এড়ানোর কি চমৎকার শিশুসুলভ অযুহাত! আসলেই কী তাই? নাকি স্রোতের বিপরীতে দাঁড়ালে আমার শান্ত নির্ঝঞ্ঝাট জীবনটা হয়তো একটু ঝঞ্ঝা বিক্ষুব্ধ হবে, ক্যারিয়ারটা হয়তো একটু ওলট পালট হবে, ভালোমানুষ, ভালোছেলের তকমাতে কিছুটা কালি পড়বে, মাসে একবার ট্যুর দেওয়ার জীবনটা, সেলফিবাজি, রেস্টুরেন্ট, সিনেপ্লেক্সের জীবনটা, বাইক, মুভি, সিরিয়ালের জীবনটা, প্রেমিকার চোখে চোখ রেখে ঘন্টার পর ঘন্টা তাকিয়ে থাকা জীবনটা আর আগেরমতো থাকবেনা, দায়িত্ব নিতে হবে, কাজ করতে হবে এই ভেবে আমরা এই মিথ্যে কথাগুলো বলি নিজের সাথে? দূর থেকে মনে হয় স্রোতের বিপরীতে দাঁড়ানো অসম্ভব। যে একবার দাঁড়ায় কেবল সেই বুঝতে পারে স্ত্রোতের বিপরীতে দাঁড়ানো কঠিন হতে পারে তবে অসম্ভব কিছুইনা, একবার আল্লাহ্‌র ওপর ভরসা করে দাঁড়াতে পারলে আর কোনো চিন্তা থাকেনা, এই পথের পরতে পরতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকে আল্লাহ্‌র রহমত, সাহায্য, ভালোবাসা। আর অবশ্যই চিরসুখের এক জান্নাতের প্রতিশ্রুতি।

চিরকুটনামা

চিরকুটনামা

লিফলেট বিতরণ করার কথা মাথাতে আসলে প্রথমেই যে ছবিটা চোখের সামনে ভেসে ওঠে সেটা হচ্ছে, একজন, মানুষের ভীড়ে জোর করে হাতে হাতে লিফলেট গুঁজে দিচ্ছে, আর আম জনতা একবার চোখ বুলিয়ে মাটিতে ফেলে দিচ্ছে। অনেক সময় চোখ বুলানোও হয়ে ওঠেনা । লিফলেট হাতে পাবার পর সরাসরি মাটিতে স্থান পায়।...

read more
আলোর মিছিল

আলোর মিছিল

(যেসব ভাইয়েরা পর্নোগ্রাফি-মাস্টারবেশন এর কুফল নিয়ে মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে চান, কিন্তু বুঝতে পারছেন না কিভাবে শুরু করবেন, কি নিয়ে কথা বলবেন, কোথায় যাবেন - এই নোট, আলোর মিছিলে নাম লিখাতে চাওয়া সেই ভাইদের জন্য। এই আলোয় কেটে যাক গুমোট অন্ধকার আর হতাশা, পুড়ে ছাই হয়ে যাক...

read more