১. তরী পেজের ভাইদের দীর্ঘশ্বাস-

.
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম
.
ঈসায়ি সন দু’ হাজার নয়। ক্লাস এইটে উঠলাম। বাড়ি থেকে অনেক দূরের এক স্কুলে ট্রান্সফার করা হলো আমায়। প্রথমবারের মতো হোস্টেল লাইফের অভিজ্ঞতা হলো। হঠাৎ একদিন আবিষ্কার করলাম, পাশের সিটে দুজন নীল ছবি দেখছে। ভয়ংকর এক জগতের সাথে পরিচিত হলাম আমি। নীল দানব। পর্নোগ্রাফি
.
আমি আমার বন্ধুদের দেখেছি, মেয়ে ক্লাসমেইটদের নিয়ে সারাক্ষণ সেক্স ফ্যান্টাসিতে বুদ হয়ে থাকতে। বান্ধবীদের শারীরিক বিশ্লেষণে মগ্ন থাকতে দেখেছি। আমি তাদের দেখেছি ক্লাসের ম্যাডামদের নিয়ে সেক্স ফ্যান্টাসিতে ভোগতে। কে কাকে কল্পনা করে মাস্টারবেশন করেছে তা নিয়ে সময়ের পর সময় পার করতে দেখেছি। এছাড়াও এমন সব নির্লজ্জপনা দৃশ্য আমি দেখেছি যা বর্ণনা করা আমার দ্বারা সম্ভব না।
.
কেন তাদের চিন্তাভাবনা, চালচলন এমন হয়ে গেলো? কী তাদেরকে এমনসব বেহায়াপনার দাস বানিয়ে ফেললো? পর্নোগ্রাফি। হ্যাঁ, পর্নোগ্রাফি। আরও আছে চটিগল্প। চটিগল্প এতোটাই জঘন্য গল্প যে এখানে সম্পর্কের দেয়াল থাকে না। চটিগল্প পড়তে পড়তে, পর্ন দেখতে দেখতে ব্রেইনের স্ট্রাকচার-ই পাল্টে গেছে। মস্তিষ্ক হয়েছে বিকৃত। অন্তর হয়েছে দূষিত।
.
এই যে পর্নের ছড়াছড়ি, এটা কখনকার ঘটনা? এটা তখনকার ঘটনা যখন বাংলার মানুষ ‘ফোরজি’ তো দূরের কথা, ‘ফোরজি’ ব্যবহার করার স্মার্টফোনের কথাও চিন্তা করতো না। তখন ছিলো MP3, MP4 এর যুগ। এটা ২০০৯ সালের ঘটনা। আজ থেকে দশ বছর আগের কথা। দশ বছর আগেই যদি ক্লাস এইটের ছাত্রদের অবস্থা এই হয়, তাহলে দশ বছর পর আজকে তা কোথায় পৌঁছেছে?
.
কিছুদিন আগে আমরা ময়মনসিংহ জিলা স্কুলে এন্টিপর্ন ক্যাম্পেইন করার জন্য গিয়েছিলাম। কর্তৃপক্ষের অনুমতি চাইতে গেলে জনৈক ভদ্রলোক ভেটো দিয়ে বলেছিলেন, “মাধ্যমিকের ছেলেরা এসব (পর্নগ্রাফি) সম্পর্কে জানেনা। জানলেও দুই একজন।” উনার এই কথা দুঃখজনক নয়। এটা কমেডি। এটা হাইস্যকর।

 

২. ‘পর্ন নিয়ে কথা বলায় চিন্তিত সমাজ’ এর উদ্দেশ্যে Lost Modesty Supporting Team Chittagong University ভাইদের কিছু বার্তা-

.
আসুন পড়ি:
.
রংপুর নগরীতে প্রথম শ্রেণীর এক শিশু মেয়েকে গণধর্ষণ করেছে তিনজন শিশু।তাদের বয়স যথাক্রমে ৯,১০ ও ১১ বছর। আর মেয়ে শিশুটির বয়স ছিলো ৬ বছর! রংপুর মহানগরীর হাজিরহাট থানার ২নং ওয়ার্ডের পূর্ব গোয়ালু গ্রামে ঘটে ঘটনাটি। (https://tinyurl.com/y6kkzsqr)
.
আজকে আমার ৯ম শ্রেণীতে পড়ুয়া স্টুডেন্টের সিলেবাস দেখতে গিয়ে তার শারীরিক শিক্ষা না জানি কি একটা বইয়ে ‘বয়ঃসন্ধিকাল ও প্রজনন প্রক্রিয়া’ টাইপ কিছু একটা চোখে পড়লো। যতটুকু জানি বর্তমানে ক্লাস ৮ম এর নিচেও এসব নিয়ে পাঠ্য বইয়ে আলোচনা করা হয়।
.
২০১২ সালের কথা। তখন আমি ৯ম শ্রেণীতে পড়তাম। তখন জীববিজ্ঞান বইয়ে ব্যাঙের একটি অধ্যায় ছিলো সেখানে ব্যাঙের প্রজনন নামে একটি টপিক ছিলো। লেখা ছিলো এরকম যে, ‘প্রজননের সময় সঙ্গমকরার জন্য ব্যাঙ ঘেঙর ঘেঙর করে ডাকে…….’
আমাদের যে স্যার ছিলেন তিনি আমাদের ব্যাঙ অধ্যায়টি পড়ানোর সময় এই টপিকটি পড়াননি। এড়িয়ে গিয়েছিলেন। আমরাও স্যারকে বলিনি। নিজেরা বুঝে নিয়েছিলাম।
.
বর্তমানে যুগ পাল্টেছে। এখন ব্যাঙ পড়তে হয়না। সরাসরি বাচ্চারা ‘মানুষ’ পড়ে। মানুষের প্রজনন পড়ে। জানা ও পড়াটা দোষের নয়। কিন্তু সেটা সময় যখন হবে তখন জানুক না। কিন্তু পিচ্চি পিচ্চি বাচ্চাগুলোকে মাল্টিমিডিয়া দিয়ে বয়ঃসন্ধিকাল বুঝানোর মানে কি!
.
#লস্টমডেস্টি‘র কাজ করার সময় মাঝে মাঝে যখন মানুষকে লিফলেট বিতরন করি। পেজ থেকে কিছু বলা হয় তখন অনেক মানুষই অভিযোগ করেন যে,’আমাদের কাজের জন্য ছোট ছোট বাচ্চাদের হিতে বিপরীত হয়ে যাচ্ছেনা তো আবার! ফেসবুক ও ইউটিউবে অনেক টিনেজার আছে।তারা আমাদের এসব কাজ দেখে কৌতুহলী হয়ে যাচ্ছেনাতো আবার?!’
.
আমরা যখন কাজ করতে যাই তখন হিতে বিপরীত হয়ে যায়। অথচ স্কুলে পিচ্ছি পিচ্ছি বাচ্চাগুলোকে যখন বয়ঃসন্ধিকাল পড়ানো হয় সেটাতে সমস্যা হয় না!
.
প্রগতিশীল ভাই আমার। বলুন তো এই যে শিশু ছেলে গুলো ধর্ষণ করেছে তার কারণ কি? তারা ধর্ষণ জিনিসটা সম্পর্কে বুঝলো কি করে? এই বয়সে একটা মেয়েইবা চিনলো কি করে? এই বাচ্চা ছেলেগুলোর কি মনমানসিকতা দোষ? নারী শরীরের প্রতি লোভ টা দোষ?
উত্তরগুলো দিন যদি পারেন।
বলুন কি দায়ী এসবের জন্য? কে দায়ী?
.
এখন তো মোবাইলে দুই টিপ দিলেই দুধের বাচ্চাও পর্নো সাইটে প্রবেশ করতে পারে। তাইলে দোষ কিসের? আপনার কি করণীয়?

.

অবশ্যই দেখুন- পতনের আওয়াজ পাওয়া যায় 
পর্নোগ্রাফি-মাস্টারবেশন এর কুফল নিয়ে মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে চাইলে পড়ুন- আলোর মিছিল

 

শেয়ার করুনঃ