বিসমিল্লাহির রহমানীর রহীম। 

হস্তমৈথুন ও Diet Meal Plans: –

 কিছু কিছু খাদ্য দ্বারা আমাদের Libido (desire for sexual activity ) নিয়ন্ত্রিত হয় । এই বিষয়ে Cynthia Sass (author of S.A.S.S Yourself Slim) বলেন — “Studies show that certain foods or nutrients do play a role in boosting libido and supporting a healthy sex life.” [1]

যেসব খাবার Libido বাড়ায় তাদের বলা হয় Aphrodisiac Foods বলে। Aphrodisiac Foods মানুষের Libido বাড়াতে সাহায্য করেএই জন্য একে Foods of Love ও বলা হয় । অপরদিকে Anti-aphrodisiac বা Anaphrodisiac Foods মানুষের Libido কমাতে সাহায্য করে । তাই আপনার ফুড প্ল্যানে যদি Aphrodisiac Foods বেশি থাকে তাহলে আপনার Sexual Urge ঘন ঘন হতে পারে এবং পাওয়ারফুলও হতে পারে। তাই হস্তমৈথুন রোধে আপনাকে একটা ব্যালেন্সড ডায়েট মেনে চলতে হবে যেখানে Aphrodisiac Foods এর পরিমাণ অতিরিক্ত হবে না । Anti-aphrodisiac foods গুলো আমি খেতে বলব না কারণ এইগুলোর খারাপ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে।তাই এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভাল হয় যদি Aphrodisiac Foods খাওয়া কমিয়ে দেয়া হয় ।

আমি কিছু Aphrodisiac Foods এর নাম বলছি ব্যাখ্যাসহ এবং Anti-aphrodisiac এর সম্পর্কেও কিছু তথ্য দিব ।

Aphrodisiac Foods :-

Fruits:-

Watermelon (তরমুজ ) :- তরমুজের একটা টুকরো sweet libido-booster হিসেবে কাজ করতে সক্ষম । Texas A&M Fruit and Vegetable improvement Center এর রিসার্চাররা ২০০৮ সালে এক আর্টিকেলে বলেন যেতরমুজের কিছু উপাদান আছে যা মানুষের শরীরে Viagra- like effects দিতে সক্ষম।

তরমুজ একধরণের Phytonutrient উপাদান ধারণ করে যার নাম হল Citruline । এই Citruline কে আমাদের শরীর arginine নামক অ্যামিনো এসিডে কনভার্ট করে । আর এই arginine আমাদের শরীরে নাইট্রিক এসিডের লেভেল বাড়ায় যার ফলে আমাদের Blood vessel গুলো relaxed হয় ।আর Viagra মেডিসিনও এই একই পদ্ধতিতে কাজ করে থাকে। তাই যখন এই ফলের সিজন আসবে তখন অবিবাহিতদের জন্য এই ফলটা একটু কম খাওয়াই ভাল হবে।

Mango (আম ) :- Vitamin E এর ভাল প্রাকৃতিক উৎস হল আম । এই Vitamin E কে বলা হয় sex vitamin । এইজন্য আম হল একটা Aphrodisiac Fruit 

Banana (কলা ) :- কলা হল B-group Vitamin ও পটাশিয়ামের দারুণ উৎস। এই দুটি পুষ্টি উপাদান সেক্স হরমোন প্রোডাকশনে ব্যবহৃত হয় । এছাড়া কলা ‘Bromelain ‘ নামক এনজাইম প্রডুস করে ধারণা করা হয় এই এনজাইম male libido বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

Apple (আপেল) :- আপেলে ‘Quercetin’ নামক একধরনের antioxidant থাকে ।‘Quercetin’ এর কারণেই একে Aphrodisiac Fruit বলে গণ্য করা হয়। এছাড়া বেরি কাল-আংগুর চেরিতেও ‘Quercetin’ থাকে ।

Animal-Based Protein:-

Egg (ডিম) :- ডিম হল হাই প্রোটিনযুক্ত খাদ্য। আর প্রোটিন Aphrodisiac effect বাড়ায় । এছাড়া ডিম হল L-arginine নামক অ্যামিনো এসিডের ভাল উৎস । আর এই L-arginine যৌন রোগ erectile dysfunction এর চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় । তাই বিবাহিত ভাইয়েরা বেশি বেশি ডিম খান আর অবিবাহিতরা ডিম খাওয়া কমিয়ে দিন ।

Meat (মাংস ) :- বিফ ও চিকেনে Carnitine ও L-arginine নামক অ্যামিনো এসিড থাকে আর থাকে জিংক । Carnitine ও L-arginine রক্তপ্রবাহ ইম্প্রুভ করে এবং সেক্সুয়াল Function এর জন্যও এরা গুরুত্বপূর্ণ । জিংকও সেক্সুয়াল Function এর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।

 Vegetables:-

Tomato (টমেটো :- Love Apple নামে পরিচিত টমেটোতে প্রচুর ভিটামিন-এ থাকে । আর এই ভিটামিন-এ টেস্টোস্টেরন উৎপাদনে Vital Role পালন করে।

Carrot (গাজর):- গাজরকে ভায়াগ্রার ভেজিটেবিল ভার্সন বলা যায়।কারণ গাজরে ভিটামিন-এ ও ভিটামিন-ই দুইটাই থাকে যা সেক্স হরমোনকে পজিটিভলি ইফেক্ট করে থাকে ।

 Chilies (মরিচ ) :- মরিচে থাকা Capsaicin হার্টবিট বাড়ায় এবং endorphin রিলিজ করতে সাহায্য করে যা কিনা Libido বাড়াতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে ।

Others:- Honey (মধু) :- মধুতে প্রচুর ভিটামিন-বি থাকে যা টেস্টোস্টেরন উৎপাদনের জন্য প্রয়োজন হয়।

Garlic (রসুন ) :- রসুনে ‘ Allicin ‘ নামক পদার্থ থাকে । ‘ Allicin ‘ সেক্সুয়াল অর্গানগুলোতে রক্তপ্রবাহ বাড়ায় যা কিনা Libido বৃদ্ধিতে সহায়ক । এছাড়া আরো Aphrodisiac Foods আছে। আমি শুধু যেগুলো সহজলভ্য সেগুলোর নামই উল্লেখ করেছি ।

Anti-Aphrodisiac Foods :-

প্রাচীন যুগ থেকেই Anti-Aphrodisiac এর খোঁজ শুরু হয়ে ছিল । মধ্যযুগে যৌন চাহিদা কমানোর জন্য সাধুরা Chaste Tree এর Berry খেত ।যদিও এখন Anti-Aphrodisiac হিসেবে এটা ব্যবহৃত হয় না। বেশির ভাগ Anti-Aphrodisiac এর ব্যাড ইফেক্টস আছে কিছু ।কারণ কিছু Anti-Aphrodisiac টেস্টোস্টেরনের লেভেল একেবারে কমিয়ে দেয় ।আর টেস্টোস্টেরন পুরুষের দেহ গঠনে ও রিপ্রোডাক্টিভ সিস্টেমে খুব গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।

Anti-Aphrodisiac Drug এর কাজ হল ভায়াগ্রার বিপরীত যাকে Anti-Viagra বলা হয় । আর এই ড্রাগগুলো সাধারণত জেলে থাকা বন্দীদের দেয়া হয় যাতে বন্দীদের যৌন উত্তেজনা প্রশমিত হয় ।এছাড়া যাদের Over-active Sexual Drive আছে তারাও ডাক্তারের পরামর্শে এই ধরনের ড্রাগ নিয়ে থাকেন।

আমি শুধু দুইটা পয়েন্ট দিব Anti-Aphrodisiac সম্পর্কে –

১) Rice :- ভাত খাওয়ার মাধ্যমে টেস্টোস্টেরনের লেভেল কমানো যায় ।[2] কারণ ভাতে ফ্যাট কম থাকে । আর এর সাইড ইফেক্টসও নেই ।

২) Green and Yellow Vegetables :- সবুজ এবং হলুদ শাক-সবজিও ভাল Anti-Aphrodisiac হিসেবে কাজ করে ।

ডায়েট যেভাবে করবেন :-

Aphrodisiac Food গুলোর বড় লিস্ট দেখে হয়তো অনেকে ভাবছেন যে, “আরে ভাই সব খাবারের নামই তো দিয়ে দিলেন তাহলে আমরা খাব টা কি ? ” আসলে আমি Aphrodisiac Food খেতে নিষেধ করি নি। আমি বলতে চাচ্ছি যে আপনার প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় যেন Aphrodisiac Food গুলো কম থাকে। যেমন ধরুন–কেউ সকালে পুরো অর্ধেক একটা তরমুজ খেয়ে নাস্তা করলদুপুরে চিকেন খেল বিকালের নাস্তায় কলা ও আম খেল আবার রাত্রে বিফ ও ডিম খেল! তাহলে এটা হয়ে যাবে Aphrodisiac Based Diet Plan ।তাই আপনাকে যেটা করতে হবে সেটা হল প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় এই ধরনের খাবার কমিয়ে রাখা ,একেরবারেই ছেড়ে দিতে হবে এমন কোন কথা নেই। কারণ Aphrodisiac খাদ্যগুলোর মধ্যে কিছু আছে যা স্বাস্থ্যের জন্য খুব ভাল ।

আর সবচেয়ে ভাল হয় Plant Based Diet করলে । কারণ গবেষণায় দেখা যায় যে , Plant Based Diet মানুষের আত্মনিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা বাড়ায় । তাই শাক-সবজি বেশি খাবেন আর Animal-Based খাদ্য যেমন – বিফ ,চিকেন এগুলো কম খাবেন।

আর আপনি যদি হস্তমৈথুন থেকে একেবারেই মুক্তি পেয়ে যান তাহলে এই ডায়েট Plan স্ট্রিকলি ফলো করার দরকার নেই । যদি আপনি ১ম  ও ২য় কিস্তির  সমাধানগুলোও স্ট্রিকলি মেনে চলেন তাহলে এই ডায়েট Plan আপনার জন্য Optional হবে।

আল্লাহ্‌ আমাদের হস্তমৈথুনের ফিতনা থেকে হিফাজত করুন । আমীন ।

 পড়ুনঃ 

ব্রেক দ্যা সার্কেলঃ মাস্টারবেশন থেকে মুক্তি – https://bit.ly/2N9OeEM
ব্রেক দ্যা সার্কেলঃ মাস্টারবেশন থেকে মুক্তি (দ্বিতীয় কিস্তি) – https://bit.ly/2p2f9E1 

 

লেখক-  ফরহাদ হোসেইন মিঠু ।  উনি ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে অধ্যয়নরত। আল্লাহ ভাইকে উত্তম প্রতিদান দান করুক। 

রেফারেন্স :-

[2] “Foods That Fight Pain: ” by Dr. Neal Barnard

[3] পুষ্টিবিজ্ঞানের তথ্যগুলো নেয়া হয়েছে বিভিন্ন আর্টিকেল থেকে।

শেয়ার করুনঃ