বিসমিল্লাহির রহমানীর রহীম।

.

পর্নআসক্তির বৈশিষ্ট্যটাই এমন যে আসক্তরা ধীরে ধীরে সফটকোর পর্ন ছেড়ে হার্ডকোর পর্ণের দিকে ঝুঁকে পড়ে। এবং বাস্তব জীবনেও পর্দায় দেখানো পদ্ধতিতে যৌনমিলন করতে চায় [২৫] । সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্ন মুভিগুলোর শতকরা ৮৮ শতাংশ দৃশ্যে শারীরিক আগ্রাসনের প্রদর্শনী রয়েছে, এবং শতকরা ৪৯ শতাংশ দৃশ্যে রয়েছে মৌখিক আগ্রাসন[২৬] । শতকরা ৯৫ ভাগ ক্ষেত্রেই এই শারীরিক ও মৌখিক নির্যাতন যাদের ওপর চালানো হচ্ছে সেই পর্ন অভিনেত্রীরা হাসিমুখে পরম আনন্দে অথবা মুখবুজে নীরবে নির্যাতন সহ্য করে নিচ্ছেন [২৭]। তারমানে দর্শকদের এই মেসেজটাই দেওয়া হচ্ছে যে নারীরা পুরুষদের কাছে এইগুলোই চায়, নারীরা এভাবেই তৃপ্তি পায়, যৌনমিলন করতে হয় এভাবেই [২৮]।

সঙ্গিনীর সঙ্গে পর্ণে দেখানো পদ্ধতিতে যৌনমিলনের সময় পুরুষেরা অজান্তেই সঙ্গিনীদের নির্যাতন করে চলেছেন; মৌখিক এবং শারিরীকভাবেই। টেরও পাচ্ছেননা। সঙ্গিনী বাঁধা দিলে রেপ পর্যন্ত করে ফেলছেন, কিন্তু নিজে বুঝতেই পারছেননা। ভাবছেন এটাই বোধহয় অন্তরঙ্গতার পদ্ধতি।তার সঙ্গিনী সব ধরণের অন্তরঙ্গতায় আনন্দ পান।

.

গত কয়েক বছরে এনাল সেক্স,ওরাল সেক্সের মতো জঘন্য,বিকৃত এবং হারাম [২৯] যৌনাচারের ব্যাপক প্রসার ঘটেছে।আর এর অন্যতম কারণ হল পর্নমুভিগুলোতে এই বিকৃত যৌনাচারগুলোর আধিপত্য।পর্দার নারীরা হাসিমুখে এনাল সেক্স, ওরাল সেক্সে অংশগ্রহণ করছে কাজেই পর্নআসক্ত পুরুষরা ধরে নিচ্ছেন তাদের সঙ্গিনীরাও এনাল এনাল সেক্স ওরাল সেক্স হাসিমুখে বরণ করে নিবেন। স্বেচ্ছায় রাজি না হলে নারীদেরকে এনাল বা ওরাল সেক্স করতে বাধ্য করা হচ্ছে। প্রয়োজনে মারধোরও করা হচ্ছে।[৩০,৩১,৩২]

.

পর্নমুভিতে এই যৌনাচারগুলো আকর্ষণীয়, তৃপ্তিদায়ক হিসেবে উপস্থাপন করা হলেও আদতে এই যৌনাচার গুলো প্রচন্ড ক্ষতিকর, অস্বাস্থ্যকর,নোংরা, নারীদের জন্য অত্যন্ত কষ্টকর। এনাল সেক্সের কারণে মলাশয়ে ক্যান্সার হতে পারে নারী এবং পুরুষ দুজনেরই। যে যৌনক্রিয়া গুলোর মাধ্যমে এইচআইভি ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে, এনাল সেক্স তাদের মধ্যে শীর্ষে। অসংখ্য পুরুষ এনাল সেক্সের কারণে এইডসে আক্রান্ত হচ্ছেন, নারীদের সংখ্যাও কম নয়। এইডস ছাড়াও নানা ধরণের মারাত্মক প্রাণঘাতী রোগ যেমন হারপিস,গনোরিয়া,ক্লামিডিয়া,সিফিলিস হতে পারে এর মাধ্যমে।[৩৩,৩৪]

বিশ্বসাস্থ্য সংস্থার মতে ওরাল সেক্সের কারণে এন্টিবায়োটিক প্রতিরোধী ভয়ঙ্কর গনোরিয়া রোগের জীবাণু ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বে। বিশ্বে প্রায় সাত কোটি ৮০ লাখ মানুষ প্রতি বছর এ রোগ সংক্রমণের শিকার হচ্ছেন, যা অনেকের ক্ষেত্রে সন্তান জন্মদানে অক্ষমতার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে।বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও অন্তত ৭৭টি দেশের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখেছে, গনোরিয়ার অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে ওঠার প্রবণতা কতটা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।[৩৫]

হারপিস, ক্ল্যামিডিয়া,হেপাটাইটিসহ আরো অনেক যৌনবাহিত ইনফেকশান (STIs) ছড়িয়ে পড়তে পারে ওরাল সেক্সের মাধ্যমে।[৩৬,৩৭,৩৮]

.

ওরাল ক্যান্সারেরও অন্যতম কারণ ওরাল সেক্স । [৩৯] The New England Journal of Medicine এ প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্র থেকে দেখা যাচ্ছে ওরাল সেক্স গলায় ক্যান্সারের অন্যতম কারণ। পাঁচজনের কম সঙ্গী বা সংগিনীর সঙ্গে ওরাল সেক্সে লিপ্ত এমন ব্যক্তির গলায় ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা , যিনি কখনোই ওরাল সেক্স করেননি তার চেয়ে দ্বিগুন। আর যাদের পাঁচজনের বেশি সঙ্গী বা সঙ্গিনী রয়েছে তাদের গলায় ক্যান্সারে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা ২৫০% বেশি।

[৪০,৪১]

এনাল সেক্স,ওরাল সেক্স দম্পতিদের মধ্যে পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ,ভালোবাসা কমিয়ে দেয়। এই বিকৃত যৌনাচারগুলো দাম্পত্য কলহ,অশান্তি, মনোমালিন্য,অতৃপ্তির অন্যতম কারণ।[৪২,৪৩,৪৪]

.

পর্নমুভি এনাল সেক্স, ওরাল সেক্সকে সমাজের মূলধারায় নিয়ে এসে স্বাভাবিক করার মাধ্যমে সমকামিতার সামাজিক স্বীকৃতির জন্য চমৎকার ভিত্তি তৈরি করে দিচ্ছে। শিশুকাম বাড়ছে।

.

বাংলাদেশেও এনাল সেক্স এবং ওরাল সেক্স মহামারী আকারে। আমাদের পেইজে এরকম এমন খবর এসে পৌঁছেছে, স্ত্রীর আপত্তির মুখেও স্বামী জোর করে স্ত্রীর সঙ্গে এনাল সেক্স বা ওরাল সেক্সে লিপ্ত হচ্ছেন।

.

দম্পতিতের পারস্পরিক বিশ্বাসে ফাটল ধরায়, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ কমিয়ে দেয় ‘পর্ন আসক্তি । একজন জীবন সঙ্গী/ সঙ্গিনী সন্তুষ্টি দিতে পারেনা, পরকীয়া থেকে পতিতাগমন সব কিছুর দুয়ার খুলে দেয়।

[৪৫]

.

পর্ন আসক্তি সন্তান লালন পালনে অনীহ সৃষ্টি করে। [৪৬]

বাচ্চা কাচ্চা লালন পালন করা তো আর কম ঝামেলার কাজ না ! রাত বিরাতে বিছানা ভিজিয়ে ফেললে ডায়াপার চেঞ্জ করে দাও , ট্যাঁ ট্যাঁ করে কেঁদে উঠলে সুখের ঘুম ছেড়ে বাচ্চার কান্না থামাও , স্কুলে নিয়ে যাও, কোচিং এ নিয়ে যাও , হ্যানো ত্যানো আরো কত কি ।

পর্ন আসক্তরা ভার্চুয়াল সেক্স ফ্যান্টাসীর ফাঁদে ফেসে যেয়ে সারাক্ষণ পর্ন মুভি নিয়ে পড়ে থাকে ।

বাস্তব জীবন সম্পর্কে একেবারেই দায়িত্বজ্ঞানহীন হয়ে পড়ে । তাদের সময় কোথায় বাচ্চার জন্য আলাদা ভাবে চিন্তা করার ?

বাবা /মা পর্ন আসক্ত এমন পরিবারের বাচ্চারা প্রচন্ড অবহেলায় বেড়ে ওঠে ; স্নেহ ভালবাসা শাসন তেমন একটা পায় না ।

বাচ্চাদের দীর্ঘমেয়াদী মানসিক ক্ষতি হয় , স্কুলে পিছিয়ে পড়ে , বন্ধুদের সঙ্গে সহজভাবে মিশতে পারে না , ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে যায় ।

.

ছেলেবেলায় সবারই রোল মডেল থাকে তার বাবা-মা । তার বাবা মা পৃথিবীর সেরা বাবা মা , সবার চেয়ে বেশী স্মার্ট, এমন একজন যে সবকিছু জানে , পারে – সুপারম্যান । বাবার চশমাটা চোখে দিয়ে আর কোট টা ছোট্ট শরীরে চাপিয়ে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে ভাবে একদিন সেও তার বাবার মতোই হবে।

ছেলেমেয়েরা যখন একটু বড় হয় , বুঝতে শেখে তার চারপাশের জগত সম্পর্কে তখন বাবা/মা’র অন্ধকার জগতটা তাদের কাছে উন্মোচিত হয়ে গেলে শ্রদ্ধার গভীরতা কমে যায় ,বাবা মা’র জন্য ভালবাসার যে একটা মহাসমুদ্র ছিল ছোট্ট বুকটাতে তাতে ভাটা পড়তে সময় লাগে না ।মেয়ে বাবার আদরের স্পর্শে হয়তো পবিত্রতার অভাব অনুভব করে।

.

পর্নআসক্তি থেকে ইরেক্টাইল ডিসফাংশন, প্রিম্যাচিউর ইজাকুলেশান, যৌনাকাঙ্ক্ষা কমে যাওয়া, অতৃপ্তি, যৌন নির্যাতন, বিকৃত যৌনাচার,পারস্পরিক বিশ্বাস,শ্রদ্ধাবোধ কমিয়ে দেওয়া সবকিছুই অনিবার্য এক করুণ পরিণতির দিকে নিয়ে যায়; বিচ্ছেদ।

.

AMERICAN SOCIOLOGICAL ASSOCIATION এ উত্থাপিত একটি গবেষণাপত্র থেকে জানা যাচ্ছে বিবাহিতদের পর্ন আসক্তি, তাদের বিচ্ছেদের সংখ্যা দ্বিগুন বাড়িয়ে দেয়। [৪৭]

.

আমেরিকাতে শতকরা ৫৬টি বিবাহ বিচ্ছেদের মূলকারণ সঙ্গি/সঙ্গিনীর পর্ন আসক্তি। [৪৮]

আর এই বিবাহ বিচ্ছেদ সূচনা করে আরো অনেক সমস্যার ।

.

-> বিবাহ বিচ্ছেদের শিকার এমন পরিবারে বেড়ে উঠা ছেলেমেয়েরা খুব সহজেই বিভিন্ন অপরাধ মূলক কাজে জড়িয়েপড়ছে । তাদের জেল খাটার হার স্বাভাবিক পরিবারে বেড়ে ওঠা ছেলেমেয়েদের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ ।

.

-> বিবাহ বিচ্ছেদের শিকার এমন পরিবারে বেড়ে উঠা ছেলেমেয়েরা স্বাভাবিক পরিবারের ছেলেমেয়দের তুলনায় দ্বিগুণবেশী দারিদ্র্যের সম্মুখীণ হয় । সেই সঙ্গে একাডেমিক বা প্রফেশনাল লাইফে তারা স্বাভাবিক পরিবারের ছেলেমেয়েদেরচেয়ে খুবই পিছিয়ে পড়ে । তাদের বিভিন্ন ধরনের মানসিক সমস্যা দেখা দেয় । অনেকেই তাদের সৎ বাবার হাতে যৌননিপীড়নের শিকার হয় । অনেকে বাসা থেকে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয় – এদের অনেকের ঠিকানা হয় পতিতালয়ে বা ’পর্ন ইন্ডাস্ট্রী গুলোতে । অনেক ছেলেমেয়ে শারীরিক এবং মানসিক পীড়ন সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করে বসে ।

.

-> বিবাহ বিচ্ছেদ যে মনের সুখ শান্তি কেড়ে নেয়, হতাশা আর বিষণ্ণতার সৃষ্টি করে এমনকি অনেক সময় মানুষ আত্মহত্যাও করে এটা তো জানা কথা । বিবাহ বিচ্ছেদ কিন্তু আর্থিক ক্ষতিও করে যথেষ্ট পরিমান । একই যোগ্যতার অধিকারী বিবাহিতরা, ডিভোর্সড লোকদের তুলনায় শতকরা ১০- ৪০ শতাংশ বেশী উপার্জন করে থাকে । বিবাহ বিচ্ছেদের কারনে প্রতি বছর কম পক্ষে প্রায় ১১২ বিলিয়ন ডলার অতিরিক্ত ট্যাক্স দিতে হয় জনগণকে পুরো আমেরিকা জুড়ে ।[৪৯,৫০]

.

আসলে পর্নমুভি বলুন, হলিউডের মুভিই বলুন, বলিউডের মুভি বা আইটেম সং সব জায়গাতেই নারীকে বানিয়ে ফেলা হয়েছে সেক্স অবজেক্ট , পুরুষকে সন্তুষ্ট করার জন্যই যেন তার পৃথিবীতে আগমন ঘটেছে । তেমনি ভাবে পুরুষকে উপস্থাপন করা হচ্ছে বাইসেপ ট্রাইসেপের হাটবাজার বসিয়ে ফেলা একজন মাসলম্যান, একজন সেক্স পাওয়ার হাউজ । স্বামী স্ত্রীর পবিত্র ভালবাসাটাকে “যৌনতার” মাঝে সীমাবদ্ধ করে ফেলা হয়েছে । একে অপরকে যেকোন মুল্যে পাশবিক উপায়ে ভোগ করাটাই যার শেষ কথা এবং আসল উদ্দেশ্য । ভালবাসা যে শুধু দেহের মিলন নয়, ভালবাসাতে যে মনের মিলনটাই বড় এটা আজ মিথ্যে হতে বসেছে । ভালবাসার জন্য একসময় পুরুষ দুরন্ত ষাঁড়ের চোখে লাল কাপড় বাধতে চেয়েছিল, চ্যালেঞ্জ নিয়েছিল সারা পৃথিবী তন্ন তন্ন করে খুঁজে ১০৮ টি নীল পদ্ম আনার, প্রিয়তমাকে বুকে জড়িয়ে ধরে রেখে পার করে দিতে চেয়েছিল সারাটি জীবন, নারীরা কথা দিয়েছিল পথ চেয়ে থাকার অনেক অনেক বছর । আজ সেই নারীরাই ,আজ সেই পুরুষরাই “ভালবাসাটাকে” ডাস্টবিনে ছুড়ে ফেলে দিচ্ছে ।

.

পর্নমুভির নোংরা ফ্যান্টাসীর জগত থেকে বের হয়ে এসে, ভোগবাদী চিন্তা ভাবনা কে দূরে ঠেলে দিয়ে আসুন না একটু রোমান্টিক হয়ে যান । রাসূল (সাঃ) এর মতো করে লাইফ পার্টনারকে ভালবাসুন । একে অন্যের সীমাবদ্ধতা, দোষ ত্রুটি গুলো ক্ষমা করে দিন, একে অন্যের প্রতি সহনশীল হোন, সম্পর্কের ব্যাপারে বিশ্বস্ত হোন ।

.

ভুলে ভরা গল্প লিখতে লিখতে পার করে দিলেন তো অনেক দীর্ঘরাত, অযথা ভুলে ভালোবাসার রৌদ্রকাজ্জ্বল,শান্ত,নিরুদ্রপ চেনা উপকূলে আহব্বান করে নিয়ে আসলেন রুদ্র ঝড়ের সংবাদবাহী কালো মেঘ, আর কতো ? যথেষ্টেরোও বেশি কি হয়নি? এবার তবে থামুন। একজীবনে কতোটা আর নষ্ট হবেন ?

.

ফাগুনের তারাভরা একরাতে জোস্ন্যায় হেলান দিয়ে বসুন দুজনে। কান্নার রঙ্গ মুছে ফেলে চোখ রাখুন। হাওয়ার গল্প শুনে পার করুন কিছুটা সময় ,শুকতারাকে সাক্ষী রেখে ও’র কপালে চুমু খান। নিজের কর্কশ মুঠিতে,ওর কোমল মুঠো নিয়ে বলুন, ‘মেয়ে, এখন আমি আমার ভুল বুঝতে পারি। আমার ক্ষমা চাইতে ইচ্ছে করে। ইচ্ছে করে গা ঝাড়া দিয়ে নোংরামিগুলো ফেলে দিয়ে জীবনের পক্ষে দাঁড়াতে, ভালোবাসার সেই চেনা উপকূলে ফিরে আসতে।ইচ্ছে পূরণের এই দুঃসাহসিক যাত্রায় এভাবেই তোমার হাতটা ধরে রাখতে দেবেনা?

(শেষ)

======

পড়ুনঃ

প্রথম পর্ব-https://goo.gl/4oSpTV

দ্বিতীয় পর্ব- https://goo.gl/98xQZV

=======

রেফারেন্সঃ

[২৫]Wright, P.J., Tokunaga, R. S., & Kraus, A. (2016). A Meta-Analysis Of Pornography Consumption And Actual Acts Of Sexual Aggression In General Population Studies. Journal Of Communication, 66(1), 183-205. Doi:10.1111/Jcom.12201; DeKeseredy, W. (2015). Critical Criminological Understandings Of Adult Pornography And Women Abuse: New Progressive Directions In Research And Theory. International Journal For Crime, Justice, And Social Democracy, 4(4) 4-21. Doi:10.5204/Ijcjsd.V4i4.184; Allen, M., Emmers, T., Gebhardt, L., & Giery, M. A. (1995). Exposure To Pornography And Acceptance Of The Rape Myth. Journal Of Communication, 45(1), 5–26. Doi:10.1111/J.1460-2466.1995.Tb00711.X

[২৬] Bridges, A. J., Wosnitzer, R., Scharrer, E., Sun, C. & Liberman, R. (2010). Aggression And Sexual Behavior In Best Selling Pornography Videos: A Content Analysis Update. Violence Against Women, 16(10), 1065–1085. Doi:10.1177/1077801210382866

[২৭] ][ https://goo.gl/xk1NM3 ]

[২৮] Bridges, A. J. (2010). Pornography’s Effect On Interpersonal Relationships. In J. Stoner And D. Hughes (Eds.) The Social Costs Of Pornography: A Collection Of Papers (Pp. 89-110). Princeton, NJ: Witherspoon Institute; Layden, M. A. (2010). Pornography And Violence: A New Look At The Research. In J. Stoner And D. Hughes (Eds.) The Social Costs Of Pornography: A Collection Of Papers (Pp. 57–68). Princeton, NJ: Witherspoon Institute; Marshall, W. L. (2000). Revisiting The Use Of Pornography By Sexual Offenders: Implications For Theory And Practice. Journal Of Sexual Aggression 6(1-2), 67. Doi:10.1080/13552600008413310]

[২৯] [ https://islamqa.info/en/91968]

[৩০] [Eunjung Ryu, “Spousal Use of Pornography and Its Clinical Significance for Asian-American Women: Korean Women as an Illustration,” Journal of Feminist Family Therapy 16, no. 4 (2004): 75–89. Janet Hinson Shope, “When Words Are Not Enough: The Search for the Effect of Pornography on Abused Women,” Violence Against Women 10, no. 1 (2004): 56–72.

[৩১] https://goo.gl/4hccVw

[৩২] https://goo.gl/Uitete ]

[৩৩] [https://goo.gl/prfgBG ]

] [৩৪] https://goo.gl/FtLX9u

[৩৫] [http://www.bbc.com/bengali/news-40546773]

[৩৬] https://goo.gl/5mLcv3

[৩৭] https://goo.gl/Lu1ZNY

[৩৮] https://goo.gl/Q8ZJiZ

[৩৯][https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/22236342]

[৪০] [https://goo.gl/a232zi ]

[৪১] [ “New Scientist: “Oral sex can cause throat cancer” – 09 May 2007″.Newscientist.com. Retrieved 2010-03-19. ]

[৪২] https://goo.gl/CetK6N

[৪৩] https://goo.gl/5gNNJB

[৪৪] https://goo.gl/7GWhD5

[৪৫] [Jill Manning, “Hearing on pornography’s impact on marriage & the family,” U.S. Senate Hearing: Subcommittee on the

Constitution, Civil Rights and Property Rights, Committee on Judiciary, Nov. 10, 2005. http://www.judiciary.senate.gov/

hearings/testimony.cfm?id=e655f9e2809e5476862f735da10c87dc&wit_id=e655f9e2809e5476862f735da10c87dc-13(accessed Dec. 27, 2012)]

[৪৬] [Dolf Zillmann, “Influence of unrestrained access to erotica on adolescents’ and young adults’ dispositions toward sexuality,”Journal of Adolescent Health27 (Aug. 2000): 41-44. ]

[৪৭] https://goo.gl/7bxq2r ]

[৪৮] [https://goo.gl/HyVV91 ]

[৪৯][ https://goo.gl/mLY78T

[৫০] https://goo.gl/D8UAWx ]

শেয়ার করুনঃ