বিসমিল্লাহির রহমানীর রহীম

Homosexuality & Heterosexuality এর মধ্যে পার্থক্যঃ

Homosexuality উভয়ের পেছনেই জিনেটিক প্রভাব নেই। আসলে জীন আমাদেরকে নিয়ন্ত্রণ করে না বরং জীন আমাদের একটা অবস্থার জন্য প্রস্তুত হওয়ার জন্য প্রশিক্ষণ নিতে হয় [১]। তেমনি জীন আমাদের সঙ্গম করার জন্য প্রস্তুত করে কিন্তু আমরা কিভাবে সঙ্গম করব সেটা জীন নির্ধারণ করতে পারে না, সেটা নির্ধারিত হয় ব্যক্তির দ্বারা ।  অর্থাৎ  Homosexuality  হল ‘matter of choice’

কিন্তু Heterosexuality এর পেছনে বায়োলজিক্যাল ও Environmental প্রভাব আছে ।  মানুষের জন্য Heterosexual হওয়া হল স্বাভাবিক ।  কারণ Heterosexuality  এর সাথে মানুষের Survival instinct  ও reproductive instinct এর সম্পর্ক আছে ।  মানুষের জন্য Survival instinct  ও  reproductive instinct গুরুত্বপূর্ণ । কারণ এই দুটা ছাড়া মানুষের অস্তিত্বই বিলীন হয়ে যাবে। অথচ Homosexuality এর সাথে  এই দুই instinct  এর কোন সম্পর্কই নেই !

সমকামীরা সঙ্গম করার পর অসুস্থতাছাড়া অন্য কোন ফলাফল পায় কি? না পায় না। অর্থাৎ তারা ইনপুট করে ঠিকই কিন্তু কোন আউটপুট পায় না! এর কারণ হল যে তারা ভুল বায়োলজিক্যাল তথ্য ইনপুট করছে মানব শরীরে অথচ Heterosexual রা সঠিক বায়োলজিক্যাল তথ্য ইনপুট করছে বলে তারা বায়োলজিক্যাল আউটপুটও পাচ্ছে।

এখানে একটা জিনিস লক্ষ্যণীয় যে সমকামীদের অস্তিত্ব Heterosexualদের অস্তিত্বের উপর নির্ভরশীল কিন্তু Heterosexualদের অস্তিত্ব সমকামীদের উপর নির্ভরশীল নয় কারণ সমকামীদের বংশবৃদ্ধি করার কোন ক্ষমতাই নেই, এইজন্য Homosexuality হল একটা ভঙ্গুর অবস্থা অথচ Heterosexuality হল একটা শক্ত অবস্থা । এ কারণে পৃথিবীর সব সমকামীদের যদি আপনি একটা দ্বীপে অবস্থান করতে দেন তাহলে এরা এমনিতে বিলুপ্ত হয়ে যাবে।

এছাড়া অন্যান্য রিসার্চের দ্বারা Homosexuality ও Heterosexuality এর মধ্যে যেসব পার্থক্যগুলো জানা যায়–

১) UCLA এর রিসার্চাররা তাদের একটি গবেষণায় দেখিয়েছেন যে, সমকামীদের যৌন সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ী হয় না।তাদের গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে প্রায় ৫১% সমকামী পুরুষদের Relationship Status হল সিঙ্গেল, অথচ বিষমকামী পুরুষদের ক্ষেত্রে পরিমাণটা হল মাত্র ১৫%! [২]

২) সমকামীরা বিষমকামীদের তুলনায় দ্বিগুণ যেন সমস্যার মুখোমুখি হয় । [৩]

৩)সমকামীরা যদি কারো সাথে সম্পর্কও করে তবুও সেই সম্পর্ক বেশিদিন টিকে না। ৬০% সমকামী পুরুষদের সম্পর্ক ১ বছরেরও কম টিকে এবং বেশিরভাগ সমকামী নারীদের সম্পর্ক ৩ বছরেরও কম টিকে| [৪]

এছাড়াও Homosexuality এর আরো সমস্যা আছ। fo Heterosexuality এর সমস্যা এতটাই কম যে সেটাকে অগ্রাহ্য করা যায় ।

এইজন্যই আমাদের শরীর তৈরী মূলত Heterosexuality এর জন্য । Dr. Neil Whitehead এই সম্পর্কে বলেন–

” যদি DNA তে কিছু প্রোগাম হতে যায় তাহলে আপনি ধরে নিতে পারেন যে সেটা Heterosexuality হবে”। [৫]

তথ্যসূত্র:

[১] My genes made me do it! by Dr Neil Whitehead

[২] Charles Strohm, et al., “Couple Relationships among Lesbians, Gay Men, and Heterosexuals in

California: A Social Demographic Perspective,” Pa-per presented at the annual meeting of the American Sociological Association, Montreal Convention Center, Montreal, Quebec, Canada, (Aug 10, 2006): 18. Accessed at: http://www.allacademic.com/metaplo.1912 index.html

[৩] Laumann EO, Paik A, Rosen RC. 1999. Sexual dysfunction in the United States: Prevalence and predictors. JAMA 281:537–44

[8] West DJ. 1977. Homosexuality Reexamined. London: Duckworth

[৫] My genes made me do it! by Dr Neil Whitehead page-79

সমকামিতা সৃষ্টির কারণ:

সমকামিতা যেহেতু জন্মগত নয় তারমানে হল সমকামিতা সৃষ্টি হয় সমাজের ও পরিপার্থিক অবস্থা দ্বারা আমি এখানে কিছু সমকামিতার কারণ সংক্রান্ত গবেষণার কথা উল্লেখ করব —

১) বিকৃত নগরায়ন সমকামিতা বিস্তারে বিকৃত নগরায়নের ভূমিকা আছে। নগরায়নে যদি বিকৃত অশ্লীল উপাদানের প্রভাব বেশি থাকে তাহলে সে নগরায়ন সমকামী সৃষ্টি করে। Laumann এর এক স্টাডি থেকে এই বিষয়টা প্রমাণিত হয়েছে। নিম্নে Laumann স্টাডির ফলাফল দেখানো হল–

Figure-1: Laumann Study”

এই রিসার্চ থেকে দেখা যায় যে , বড় শহরের পরিবেশ সমকামিতা সৃষ্টিতে বড় ভূমিকা পালন করে গ্রাম্য পরিবেশের তুলনায়। পশ্চিমা দেশগুলোর বড় শহরগুলোর পরিবেশ খুবই অশ্লীল ও নোংরা।এজন্য সেখানে সমকামিতার মত বিকৃত যৌন আচরণ দেখা যায়ও বেশি।

অর্থাৎ সমকামিতা বিস্তারে পরিবেশ একটা গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর।

২)পারিবারিক অবস্থাঃ বেশিরভাগ সমকামীদের পরিবারিক ইতিহাস ঘেটে দেখলে দেখা যায় যে তাদের সাথে হয় বাবা নাহলে মায়ের সাথে সম্পর্কে খারাপ অথবা তাদের মাতা-পিতার দাম্পত্য জীবন খারাপ।

শৈশবকাল, সেক্সুয়াল ওরিয়েন্টেশন নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কারণ শৈশবকালেই একজন শিশু অন্যকে অনুকরণ করতে শেখে । তাই কোন ছেলের   যদি তার  বাবার সঙ্গে ছোটবেলায় খারাপ সম্পর্ক থাকে তখন সেই ছেলের মধ্যে পুরুষত্ব দুর্বলভাবে সৃষ্টি হয় ।  তেমনি যদি ছোটবেলায় কোন মেয়ের , তার মায়ের  সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হয়ে থাকে তখনও সেই মেয়ের মাঝে নারীসুলভ স্বভাব দুর্বলভাবে গঠিত হয়। আর এর ফলে ছেলে ও মেয়ে উভয়েরই  ‘gender non-conformity নামক  সমস্যার সৃষ্টি  হয় ।  “childhood gender non-conformity”  একজন ব্যক্তিকে সমকামী করতে   গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।” [৩,৪]

৩)কৈশোরের যৌন কার্যক্রম:

কৈশোরের যৌন কার্যক্রমের উপর যৌবনের যেন কার্যক্রম অনেকাংশ নির্ভর করে ।  Van Wyk and Geist এর রিসার্চে দেখা যায় যে, বেশিরভাগ লেসবিয়ানরা পূর্বে নারীদের দ্বারা হস্তমৈথুন করেছে । তেমনি পুরুষদের ক্ষেত্রেও এই কথাটা প্রযোজ্য। [৫]

অর্থাৎ কৈশোরের হোমোসেক্সুয়াল বিহেভিয়ারের কারণে অনেকে ভবিষৎ এ বিপরীত লিংগের দ্বারা আকৃষ্ট হয় না এবং উত্তেজিত হয় না।

বিষয়টা আরো পরিষ্কার করে বুঝা যায় Porn Addict দের দেখলে । এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, পর্ণ এডিক্টরা বাস্তব জীবনের যৌনসংগী দ্বারা উত্তেজিত কম হয় কিংবা উত্তেজিত হতে সমস্যা হয় [৬] । এর কারণ হল আমাদের ব্রেন আমাদের ব্রেনের Adaption ক্ষমতা প্রবল যখন একজন Porn Addict ,পর্ণ দেখে উত্তেজিত হয় তখন সে মূলত নিজেকে Graphic/Virtual Data দিয়ে উত্তেজিত করে আর ব্রেনও এটা এডাপ্ট করে নেয়। তাই যখন ব্রেন Real Data পায় তখন সেটা ঠিকভাবে Analyses  করতে পারে না । ফলে ব্যক্তি তার সঙ্গী দ্বারা প্রবলভাবে উত্তেজিতও হতে পারে না। সমকামীদের ব্যাপারটাও কিছুটাও এইরকম শৈশব ও কৈশোরে তাদের বিকৃত যৌন আচরণের সাথে ব্রেন নিজেকে খাপ খাইয়ে নেয় ফলে পরবর্তীতে সে বিপরীত লিংগের দ্বারা উত্তেজিত হতে পারে না।

৪) যৌন নির্যাতন:- যৌন নির্যাতন সমকামিতা সৃষ্টির একটা গুরুত্বপূর্ণ কারণ ।

রিসার্চার Finkelhor তার এক গবেষণায় পেয়েছেন যে, যেসব অল্পবয়সী পুরুষ তাদের থেকে বয়সে বড় পুরুষদের দ্বারা যৌনভাবে নির্যাতিত হয়েছে তাদের সমকামী হবার হবার সম্ভাবনা চারগুণ বেশি [৭] । আরেক রিসার্চে দুই-তৃতীয়াংশ লেসবিয়ান বলেছে যে, তারা পুরুষদের দ্বারা যৌনভাবে নির্যাতিত হয়েছিল বার বছর বয়সের পর, বিষমকামীদের ক্ষেত্রে এর পরিমাণ হল ২৮%” [৮]  ।

শিশু যৌন নির্যাতনের এক রিপোর্টে  ১২%-৩৭% সমকামী বলেছে যে তাদের এই নির্যাতনের অভিজ্ঞতা আছে [৯]

একনজরে সমকামিতা সৃষ্টির কারণ:- একটা স্টাডিতে [১০] সমকামিতা সৃষ্টির পরিবেশগত সব কারণগুলোকে Path Analysis এর মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে, নিম্নে সেগুলো দেখানো হল–

ফিগার-১  পুরুষদের জন্য প্রযোজ্য।

ফিগার -২ নারীদের জন্য প্রযোজ্য ।

তথ্যসূত্রঃ

[১]  Laumann EO, Gagnon JH, Michael RT, Michaels S. 1994. The Social Organization of Sexuality. Chicago: University of Chicago Press

[২]Bell Ap, Weinberg MS, Hammersmith SK. 1981. Sexual Preference: Its Development In Men and Women (Bloomington, Indiana: Indiana university press )

[৩] Bem dj. 1996. Exotic becomes erotic: a developmental theory of sexual orientation. Psychological Review 103, 320–335

[8] drummond Kd, Bradley SJ, peterson-Badali M., Zucker K.J. 2008. A follow-up study of girls with gender identity disorder. Developmental Psychology 44, 34–45.

[৫] van Wyk pH, geist CS. 1984, psychosocial development of heterosexual, bisexual and homosexual behavior. Archives of Sexual Behavior 13, 505–544

[৬ ]www.covementeyes.com

[৭] finkelhor d. 1981. The sexual abuse of boys. victimology 6, 76–84.

[৮] gundlach rBI, reiss Bf 1967. Birth order and sex of siblings in a sample of lesbians and non lesbians. Psychological Reports 20, 61–63

[৯]  purcell dW, patterson Jd, Spikes pS. 2008. Childhood sexual abuse experienced by gay and bisexual men: understanding the disparities and interventions to help eliminate them. In Unequal Opportunity. Health Disparities Affecting Gay and Bisexual Men in the United States, rj Wolitski, r Stall, and rovaldiserri, eds. (new York; oxford university press), pp. 72–96.

[১০] Bell et al., 175-page questionnaire

উপসংহার:

পুরো লেখাটা যদি আপনি ভাল করে পড়ে থাকেন, তাহলে নিশ্চয় এখন বুঝতে পারছেন যে সমকামিতা একটা বিকৃত যৌন আচরণ অভিজিত রায়ের মত কিছু মিথুক একে বৈধতা দেয়ার জন্য মিথ্যা কথা বলে বেড়াচ্ছে।

সমকামিতা যাতে সমাজে স্থান না পায় সেজন্য আমাদের সবার উচিত এর প্রতিবাদে অংশগ্রহণ করা এবং একে প্রতিরোধ করা ।

(শেষ)

১) প্রথম পর্ব – http://bit.ly/2fiqYCV ২) দ্বিতীয় পর্ব – http://bit.ly/2f7f8bK ৩) তৃতীয়

পর্ব – http://bit.ly/2eAKeKx

#stand_against_Lgbt_propaganda#মিথ্যায়_বসত

লিখেছেন-  Farhad Hossain

লেখক Faridpur Medical College এ অধ্যয়নরত

শেয়ার করুনঃ