বিসমিল্লাহির রহমানীর রহীম

সমকামীদের ভ্রান্ত দাবি-৪ ” জনসংখ্যার শতকরা ১০ ভাগ হল সমকামী ”

সমকামিরা প্রচার চালিয়েছিল যে জনসংখ্যার একটা বড় অংশ সমকামী , তাই এটা স্বাভাবিক ! এই মিথ্যাচারের উৎস হল কুখ্যাত একজন Sex Researcher , Alfred Kinsey এর একটা রিসার্চ [১]

Kinsey ১৯৪৮ ও ১৯৫৩ সালে তার এই রিসার্চটা প্রকাশ করেছিল এবং সেই রিসার্চের ভিত্তিতেই সমকামীরা এই অপপ্রচার চালাচ্ছে। কিন্তু এই রিসার্চটার সমালোচনা খুব বেশি হয়েছে কারণ এই ধরনের রিসার্চের জন্য যেসব শর্ত পূরণ করা উচিত তা তিনি ভালভাবে পূরণ করতে পারেন নি [২]  তাই তার এই রিসার্চটাও গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছে।

বর্তমানের কিছু রিসার্চ থেকে আমরা জানতে পারি যে exclusive সমকামীদের (o attractions, behavior,

ও self identification এর দিক দিয়ে সমকামী) সংখ্যা খুবই কম ।  একটা গ্রহণযোগ্য রিসার্চে দেখা গিয়েছে যে exclusive সমকামীদের মধ্যে পুরুষ হল মাত্র ০.৬% এবং নারী হল ০.২% ! [৩]

আমেরিকার মত দেশে যেখানে সমকামীদের সংখ্যা খুব বেশি বলে ধারণা করা হয় সেখানেও জরিপ চালিয়ে দেখা গিয়েছে যে সমকামীদের সংখ্যা খুবই কম। আমেরিকায় Sexual Practice এর সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য স্টাডি Kosoi National Health and Social Life Survey (NHSLS) NHSLS  এর স্টাডিতে দেখা গিয়েছে যে মোট জনসংখ্যার মাত্র  ২.৮% পুরুষ এবং ১.৪% নারী হল সমকামী । [৪]

নিম্নে NHSLS এর স্টাডির ফলাফল চিত্রের সাহায্যে দেখানো হল—

সমকামীদের সংখ্যা বেশি তাই এটা স্বাভাবিক ও বৈধ আচরণ — সমকামীরা সাধারণ মানুষদের এই কথা বুঝানোর জন্যই এই মিথ্যাচার করেছিল। কিন্তু তারা সফল হতে পারেনি।

তথ্যসূত্র:

১)For two book-length critiques of Kinsey’s research and his ethics—or lack thereof—see Judith A. Reisman and Edward W. Eichel, Kinsey, Sex and Fraud: The Indoctrination of a People (Lafayette, La.: Huntington House, 1990); and Judith A. Reisman, Kinsey: Crimes & Consequences: The Red Queen and the Grand Scheme (Arlington, Va.; Institute for Media Education, 1998).

২) Edward O. Laumann, John H. Gagnon, Robert T. Michael, and Stuart Michaels, The Social Organization of Sexuality: Sexual Practices in the United States (Chicago: University of Chicago Press, 1994), p. 35. See also Robert T. Michael, John H. Gagnon, Ed-ward O. Laumann, and Gina Kolata, Sex in America: A Definitive Survey (Boston: Little, Brown and Co.,

1994), pp. 17-19.

৩)Laumann, et al., The Social Organization of Sexuality, p. 312.

8)Lawrence v. Texas, Docket No. 02-102 (U.S. Supreme Court), briefof amici curiae Human Rights Campaign etal., 16 January 2003, p. 16 (footnote 42).

সমকামীদের ভ্রান্ত দাবি-৫ : ” সমকামীরা Heterosexual হতে পারে না। ”

সমকামীদের আরেক বিভ্রান্তি হল যে সমকামিতা হল অপরিবর্তনীয়! এটা একটা ভুল ধারণা। সমকামীরা যেমন বিষমকামী হতে পারে, তেমনি বিকৃত মনের অধিকারী বিষমকামীরাও সমকামী হতে পারে। কিন্তু এখানে একটা বড় বিষয় বিষমকামীদের তুলনায় সমকামীরাই নিজেদের বেশি পরিবর্তন করে। নিচের ফিগারটি দেখলে এটা বুঝতে পারবেন–

Figure-1:Showing natural movement between sexual orientations

এই ফিগারে দেখা যাচ্ছে যে টিনএজার সমকামীদের প্রায় অর্ধেকই বিষমকামী হয়ে যায় পরবর্তীতে অর্থাৎ ৪% টিনএজার সমকামীদের প্রায় ২% বিষমকামী হয়। অপরদিকে ৯৬% বিষমকামী টিনএজারদের মধ্যে মাত্র ২% পরবতীতে সমকামী হয়। [১]

Figure-2:Movement of male adults between homosexuality and heterosexuality over a lifetime. Most movement is towards heterosexuality. Within each vertical column light grey labelled blocks indicate the previous orientation’

ফিগার-২ এ পুরুষদের সেক্সুয়াল ওরিয়েন্টেশন দেখানো হয়েছে, (SSA=Same Sex Attraction)

Figure-3:Movement of female adults between lesbianism and heterosexuality. Most movement is towards heterosexuality’

ফিগার-৩ এ নারীদের সেক্সুয়াল ওরিয়েন্টেশনের পরিবর্তন দেখানো হয়েছে । (SSA=Same Sex Attraction)

ফিগার-২ ও ফিগার-৩ দেখে যে সিদ্ধান্তগুলো নেয়া যায়—

১) বেশিরভাগ পরিবর্তন হল Heterosexuality এর দিকে ।

২) যারা Heterosexuality তে পরিবর্তিত হচ্ছে তাদের সংখ্যা  Bisexual 8 exclusive SSA (SSA=Same Sex Attraction) এর সংখ্যার সমষ্টির  থেকেও বেশি!

এই জরিপগুলো দেখলে সহজেই বুঝা যায়, সমকামিতা কোন স্থির অবস্থা নয় বরং এটা পরিবর্তনশীল ।  অপরদিকে বিষমকামীদের নগণ্য পরিবর্তন দেখে বলা যায় যে,  বিষকামিতা হল স্থির অবস্থা ।  এর দ্বারা প্রমাণিত হয় যে,  সমকামিতা হল একটা অস্বাভাবিক অবস্থা কারণ অস্থিরতা হল অস্বাভাবিক অবস্থার একটা বৈশিষ্ট্য

তথ্যসূত্র:

[১] Bell AP, Weinberg MS, Hammersmith SK. 1981. Sexual Preference: Its Development In Men and Women. Bloomington, Indiana: Indiana University Press

[২] Kinnish KK, Strassberg DS, Turner CW. 2005. Sex differences in the flexibility of sexual orientation: a multidimensional retrospective assessment. Archives of Sexual Behavior 34:175-83

চলবে ইনশা আল্লাহ্‌ ……

লিখেছেন-  Farhad Hossain

লেখক Faridpur Medical College এ অধ্যয়নরত

পড়ুন প্রথম দুটি পর্ব –

১) প্রথম পর্ব – http://bit.ly/2fiqYCV২) দ্বিতীয় পর্ব – http://bit.ly/2f7f8bK

#stand_against_Lgbt_propaganda

#মিথ্যায়_বসত

শেয়ার করুনঃ