বিসমিল্লাহির রহমানীর রহীম

রিমাইন্ডার -১

বালক দরজা লক করে পিসির সামনে এসে বসলো । তড়িঘড়ি করে নেট কানেক্ট করে তার প্রিয় এক্স-রেটেড ওয়েবসাইটে ঢুকলো । বালক তখনো জানতো না আর কিছুক্ষণ পরেই তার সঙ্গে আজরাইলের  এপোয়েন্টমেন্ট আছে ………

রিমাইন্ডার -২
বোন, তুমি যদি জানতে অনেক ছেলেরা তোমার প্রোফাইল পিক বা সেল্ফি দেখে তোমাকে নিয়ে কি চিন্তা করে, তোমার কথা ভেবে বাথরুমে কি করে বা বন্ধুদের ১৮+ আড্ডায় তোমাকে নিয়ে কি আলোচনা করে, তাহলে তুমি হয়তো ফেসবুকে ছবি আপ্লোড করার চেয়ে মরে যাওয়াটাই বেশি  পছন্দ মনে করতে………

রিমাইন্ডার -৩

ট্রেনে বা বাসে করে কোথাও যাচ্ছেন । বেশ লম্বা জার্নি । হাতে অফুরন্ত সময় । ম্যাদম্যাদে জার্নিটাকে আনন্দদায়ক করার জন্য ফোন/ ল্যাপটপ বের করে  আইটেম সং দেখা শুরু করলেন । এবং  কিছুক্ষণ পরে ভয়ানক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে  কোন রিটার্ন টিকিট ছাড়াই পরপারে চালান হয়ে গেলেন………

রিমাইন্ডার -৪

আপনি কোন হারাম কাজ করা অবস্থায়  মারা গেলেন । আপনার অকাল মৃত্যু দেখে আপনার হারাম কাজের  সঙ্গী  সব ইয়ার  দোস্তরা  তওবা করে আল্লাহ্‌র দিকে প্রত্যাবর্তন করল । আপনার বন্ধুরা সব জান্নাতে চলে গেল ।   হাশরের ময়দানে আপনাকে একা একা উঠতে হল বিশাল পাপের বোঝা নিয়ে ……

রিমাইন্ডার -৫

দরজা  ভেজিয়ে দিয়ে  পিসির সামনে এসে  বসলেন ।   আপনার ফেভারিট পর্নমুভিটা চালিয়ে দিয়ে মাস্টারবেট করা শুরু করলেন ।  উত্তেজনার বশে আপনি দরজার লক লাগাতে ভুলে গিয়েছিলেন এবং আপনি যখন মাস্টারবেশনের ক্লাইম্যাক্সে ঠিক তখনি আপনার মা দরজা ঠেলে আপনার রুমে ঢুকল ………

রিমাইন্ডার -৬

আপনার ন্যাওটা এবং আপনার   খুব আদরের  ছোট বোন একদিন আপনার পিসিতে শত শত জিবি জঘন্য রকমের  পর্নমুভি  খুঁজে পেল ………

রিমাইন্ডার -৭

স্ত্রীর মুখের দিকে তাকানোর সাহস হলনা আপনার । তড়িঘড়ি করে পাশ ফিরলেন । স্ত্রীর উতপ্ত , অতৃপ্ত নিঃশ্বাসের শব্দে আপনার ভেতরটা কুকড়ে যাচ্ছে ।   সংসার কতদিন টিকবে  জানেন না ।  নিজেকে বার বার ধিক্কার দিলেন সে  –  ইশ! কেন যে আমি এতো পর্নমুভি দেখতাম আর ঐ জঘন্য কাজটা করতাম

………

রিমাইন্ডার -৮

“…… তারা যখন জাহান্নামের কাছে পৌঁছাবে, তখন তাদের কান, চক্ষু ও ত্বক তাদের কর্ম সম্পর্কে সাক্ষ্য দেবে ।”(সূরা হা-মীম সেজদাহ, আয়াত ২০)

রিমাইন্ডার -৯

কয়েকটা ক্লিকেই ইন্টারনেট হিস্টোরি ডিলিট করে দিয়ে হাঁফ ছাড়লেন । কিন্তু কিরামীন, ক্বাতীবীনের খাতায় সবকিছুই পুঙ্খানুপুঙ্খ লিখা থাকলো ………

রিমাইন্ডার -১০

বালক পর্নমুভি দেখার আগে এবারোও ভাবলো আজকেই শেষ, আর  কোনদিন  দেখবনা ………

রিমাইন্ডার -১১

“আল্লাহ ন্যায়পরায়ণতা, সদাচরণ এবং আত্নীয়-স্বজনকে দান করার আদেশ দেন এবং তিনি অশ্লীলতা, অসঙ্গত কাজ এবং অবাধ্যতা করতে বারণ করেন। তিনি তোমাদের উপদেশ দেন যাতে তোমরা স্মরণ রাখ।” (আলকুরআন ১৬:৯০   )

রিমাইন্ডার -১২

“তাদের বলে দাও(হে মুহাম্মাদ):আমার প্রতিপালক প্রকাশ্য ও অপ্রকাশ্য অশ্লীলতা,পাপকাজ………………নিষিদ্ধ করেছেন।”(আলকুরআন ৭:৩৩)

রিমাইন্ডার -১৩

যদি পত্রিকার পাতায় প্রকাশিত হতে দেখতাম নিজের আমলনামা (ভিডিওসহ), তাইলে হয়তো ঘেন্নায় নিজেই নিজেরে কোপ মারতাম।
সকল প্রশংসা আল্লাহ্‌ তা’আলার, যিনি বান্দার পাপ গোপন রাখেন।

রিমাইন্ডার -১৪

“মুমিনদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি নত রাখে এবং তাদের যৌনাঙ্গর হেফাযত করে। এতে তাদের জন্য খুব পবিত্রতা আছে। নিশ্চয় তারা যা করে আল্লাহ তা অবহিত আছেন।ঈমানদার নারীদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টিকে নত রাখে এবং তাদের যৌন অঙ্গের হেফাযত করে।………”(আলকুরআন ২৪:৩০-৩১)

রিমাইন্ডার -১৫

“হে ঈমানদারগণ, তোমরা শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করো না। যে কেউ শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করবে, তখন তো শয়তান নির্লজ্জতা ও মন্দ কাজেরই আদেশ করবে।”(আলকুরআন ২৪:২১)

রিমাইন্ডার -১৬

“যারা মুমিনদের মধ্যে অশ্লীলতার প্রসার কামনা করে তাদের জন্য আছে দুনিয়া ও আখিরাতে পীড়াদায়ক শাস্তি এবং আল্লাহ জানেন,তোমরা জানো না।”(আলকুরআন ২৪:১৯)

রিমাইন্ডার -১৭

………কোনো বেগানা নারীর প্রতি দৃষ্টি দেওয়া চোখের যিনা, অশ্লীল কথা বলা জিহ্বার যিনা, স্পর্শ করা হাতের যিনা, ব্যাভিচারের উদ্দেশ্যে হেটে যাওয়া পায়ের যিনা, খারাপ কথা শোনা কানের যিনা আর যিনার কল্পণা করা মনের যিনা । (বুখারী)

রিমাইন্ডার -১৮

………  যে ব্যাক্তি যিনা  করে কিংবা মদ পান করে, আল্লাহ তার কাছ থেকে ঈমান ছিনিয়ে নেন, যে ভাবে কোন ব্যাক্তি তার জামা মাথার উপর দিয়ে খুলে ফেলে । (হাকেম)

রিমাইন্ডার -১৯

“যে পুরুষ এমন মহিলার দেহে কামনার সাথে হাত দেবে যে তার জন্য হালাল নয়,কিয়ামতের দিন তার হাত তার কাঁধের সাথে বাঁধা অবস্থায় হাশরের ময়দানে উপস্থিত হবে। যদি সে ঐ মহিলাকে চুমো খায় তবে জাহান্নামে তার ঠোঁট দুটি কাটা হবে। যদি সে তার সাথে ব্যভিচার করে তবে তার উরু কেয়ামতের দিন তার বিরূদ্ধে সাক্ষ্য দিবে এবং বলবে, আমি হারাম কাজের জন্য তার উপর আরোহণ করেছি। তখন আল্লাহ তা’আলা তার দিকে ক্রোধের দৃষ্টিতে তাকাবেন এবং তার চেহারার গোশত খসে পড়বে। আল্লাহ বলবেন তুমি কি করেছ? তখন তার জিহ্বা বলবে, আমার জন্য যা হারাম ছিল তা বলেছি। তার হাত বলবে আমি হারাম বস্তু গ্রহণ করেছি। তার চোখ দুটো বলবে আমি হারামের দিকে দৃষ্টিপাত করেছি। তার পা দুটো বলবে, আমি হারামের পথে অগ্রসর হয়েছি। তার যৌনাঙ্গ বলবে, আমি ব্যভিচার করেছি। রক্ষী ফেরেশতাদের একজন বলবে, আমি শুনেছি এবং অপরজন বলবে আমি তা লিখেছি। আল্লাহ তা’আলা বলবেন, আমি এ সম্বন্ধে অবগত ছিলাম কিন্তু তা গোপন রেখেছি। তারপর আল্লাহ তা’আলা বলবেন, “হে আমার ফেরেশতাগণ! তাকে পাকরাও কর এবং আমার শাস্তির স্বাদ গ্রহণ করাও। যার লজ্জা নেই তার প্রতি আমার ক্রোধের অন্ত নেই!”

[ইমাম হাফিজ শামসুদ্দীন আয যাহাবী (র) এর “কিতাবুল কাবায়ের” থেকে উদ্ধৃত]

এখন থেকে মার্কেটে ভীড়ের মধ্যে, বাসের ভীড়ে মেয়েদের শরীরে হাত দেওয়ার আগে এইটা খেয়াল রাখবেন আশা করি ।

সবকিছু শেষ হয়ে যায়নি, আন্তরিকভাবে তাওবা করে আল্লাহ সুবহানু তায়ালার কাছে ফিরে আসলে অবশ্যই তিনি ক্ষমা করবেন।

চলবে ইনশা আল্লাহ্‌…

[কৃতজ্ঞতা প্রকাশঃ এই আর্টিকেলের কিছু অংশ কয়েকজন ভাইয়ের ফেসবুক পোস্ট হতে সংগৃহীত। আল্লাহ্‌ (সুবঃ) তাঁদেরকে উত্তম প্রতিদান দান করুক।]

 

শেয়ার করুনঃ