বিসমিল্লাহির রহমানীর রহীম ।

………সবই বুঝলাম চটিগল্পের কাহিনী পুরোটাই বানানো , আমি তো শুধুই  পড়ছি ওরকম  কিছু তো করছিনা ।

চটি গল্প পড়লেন আর নিজে  মজা নিলেন  ব্যাপারটা কিন্তু এখানেই শেষ নয় , পিকচার আভি বাকি হ্যায়  । চটি গল্পের নেশা আপনাকে  তিলে তিলে ধ্বংস করে ফেলবে ।   আপনার দৃষ্টি শক্তি কমে যাবে ,স্মৃতি শক্তি কমে যাবে । আপনার মস্তিষ্কে বড়সড় একটা পরিবর্তন আসবে  এবং এই পরিবর্তনটা ক্ষতিকর ।  চটি গল্প পড়ার সময় আপনার মস্তিষ্ক  কিছু রাসায়নিক পদার্থ (phenylethylamine এবং  adrenaline)  নিঃসরণ করবে , স্বাভাবিক  যৌনতার সময় যে রাসায়নিক পদার্থগুলো (oxytocin এবং dopamine) নিঃসরিত হয় তার চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা  । এই রাসায়নিক গুলো মস্তিষ্কের সাইন্যাপস এ ঘুরে বেড়াবে  এবং কোকেন আপনার মস্তিষ্কের যেই ক্ষতিটা করবে ঠিক সেই ক্ষতিটাই করবে ।

[পড়তে পারেনঃ মাদকের রাজ্যে- http://tinyurl.com/ht59spz ]

মিশিগান স্টেট ইউনিভার্সিটি একটা এক্সপেরিমেন্ট চালিয়েছিল  চটিগল্প, যৌনতা সম্পর্কে মহিলাদের দৃষ্টিভঙ্গি কীভাবে বদলে দেয়  সেটার ওপর । দেখা গেল , যেসব মহিলারা চটিগল্প পড়ে তাদের  মদ্যপান করার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে । তাদের একাধিক যৌনসঙ্গী থাকে , অবাধ যৌনাচার, বেহায়াপনায় তারা গা ভাসিয়ে দেয় ।[১]

অনেকেই বলেন যে , “ চটিগল্প বা পর্নমুভি হচ্ছে আমার সেক্স এডুকেশানের মাধ্যম”

উদ্দেশ্য বেশ ভালো কিন্তু পদ্ধতিটা খুবই খারাপ । চটিগল্প বা পর্নমুভি  কখনোই সেক্স এডুকেশানের মাধ্যম হতে পারে না । আমরা প্রথম পর্বেই আলোচনা করেছিলাম চটিগল্প যৌনতা সম্পর্কে কি ভুরি ভুরি মিথ্যে পাঠকদের গলাধঃকরন করাচ্ছে । চটি গল্প নারীকে বানিয়েছে একটা সেক্স অবজেক্ট , যে কখনো না বলে না , যে যেকোন উপায়েই যেকোন সময়  যেকোন পুরুষের মনোরঞ্জনের জন্য প্রস্তুত । চটিগল্প  পুরুষকে বানিয়েছে একটা সেক্স মেশিন যে ঘন্টার পর ঘন্টা কর্মক্ষম ।  চটিগল্পে আসক্ত পাঠক পাঠিকা এই ভুল ধারনা গুলো নিয়ে  দিন পার করেন । বিয়ের পরে শুরু হয় ঝামেলা ।

চটিগল্প থেকে সেক্স এডুকেশান পাওয়া  স্ত্রী ভাবেন , “আরে  আমার স্বামীতো  ওরকম ম্যানলি না!  ওইদিকে স্বামী ভাবেন , “যা শালা! বউ দেখি অন্যরকম” । এভাবে একজন ,  অপরজনের ওপর অসুন্তুষ্ট হন ,  শারীরিক দুরত্ব থেকে মানসিক দুরত্ব বাড়ে । একসময় ডিভোর্সও হয়ে যায়। স্বামী স্ত্রীকে জোর করেন চটিগল্পের নায়িকাদের মতো আচরন করতে এমন ঘটনাও অনেক । স্ত্রী বেচারী নিজ স্বামীর হাতেই ধর্ষিত হয়  , নীরবে চোখের পানি ফেলা ছাড়া কিছু করার থাকে না  ।

বাবমার সম্পর্কের টানাপড়েনর  প্রভাব পড়ে সন্তানদের ওপরে । তাদের সুস্থ ভাবে বেড়ে ওঠা বাঁধাপ্রাপ্ত হয় ।

[স্বামী স্ত্রীর  সম্পর্কে পর্নমুভি কি ভয়ংকর জটিলতা সৃষ্টি করে তা নিয়ে খুব পছন্দের একটা লিখা ‘১০৮ টি নীল পদ্ম’ http://tinyurl.com/guupnfo   । পড়ার অনুরোধ রইলো । পর্নমুভির জায়গায় শুধু চটিগল্প বসিয়ে  নিয়ে পড়ে ফেলবেন । ইনশা আল্লাহ্‌ স্বচ্ছ একটা ধারনা পাবেন কীভাবে চটিগল্প স্বামী স্ত্রীর সম্পর্কে জটিলতা সৃষ্টি করে ]

টেড বান্ডি নামে কুখ্যাত  একটা লোক থাকতো আমেরিকাতে । লোকটা সিরিয়াল কিলার ছিল , মেয়েদের কিডন্যাপ করত , তারপর  রেপ  করে মেরে ফেলত [পড়ুন ‘সিরিয়াল কিলার’ সিরিজি –  http://tinyurl.com/hr6hzrj , http://tinyurl.com/zgo4dm2 ] ।

ফাঁসিতে ঝোলার  পূর্বে দেওয়া এক ইন্টারভিউতে বান্ডি বলেছিল,  সে  ছোট বেলায়  বাড়ীর বাইরের ডাস্টবিনে  কিছু চটিগল্পের বই খুঁজে পায় । সেদিনই তার প্রথম পরিচয় ঘটে অশ্লীল এই জগতটার সঙ্গে । তারপর ধীরে ধীরে সে হার্ডকোর পর্নমুভিতে আসক্ত হয়ে যায় । এই আসক্তিই তার মানসিকতা নষ্ট করে দেয় , এই আসক্তিই তার মধ্যে কামের যে আগুন জ্বালিয়ে দেয় তাতে পুড়ে  ছারখার হয়ে যায় প্রায় শখানেক তরুনীর জীবন ।

ছোট বাচ্চাদের খুব আগ্রহ থাকে ইলেক্ট্রনিক গ্যাজেটগুলোর প্রতি । সুযোগ পেলেই ঘেঁটে দেখে ।  আপনার বাসায় ছোট বাচ্চা আছে বা বেড়াতে এসেছে । সে আবদার  ধরলো  , “ তোমার ফোন দাও তো একটু , গেম খেলব’। আপনি ফোন দিয়ে দিলেন তার হাতে । সে ঘাঁটতে ঘাঁটতে রাতের বেলা পড়ার জন্য আপনি যে চটিগল্পের পিডিএফ গুলো নামিয়ে ছিলেন সেগুলো পেয়ে গেল , অথবা আপনার ব্রাউজার  এর হিস্টোরি থেকে কোন চটি গল্পের সাইটে ঢুকে গেল । আপনার কারণে সে পরিচিত হয়ে গেল চটিগল্পে ।  আপনি কি গ্যারান্টি দিতে পারবেন এই বাচ্চাটার চটিগল্পের নেশা হবে না? পর্ন মুভিতে সে আসক্ত হবে না ? বড় হয়ে সে আরেকটা   টেড বান্ডি হবে  না  ?

চটি গল্পের নেশা বা পর্ন আসক্তি তার নিজের জীবনতো ধ্বংস করবেই , তার স্ত্রীর জীবনও নষ্ট করবে ,  সংসার তছনছ করে দিবে , তার  ছেলেমেয়ের  ভবিষ্যৎ অন্ধকার হয়ে যাবে । তার এতবড় ক্ষতি করার কোন অধিকার নেই আপনার ।

কীভাবে কাটিয়ে উঠবেন জীবন নষ্টকারী চটি গল্পের নেশা ? কিভাবেই’বা  ছোট ছোট বাচ্চাদের রক্ষা করবেন চটিগল্পের  বিষধর ছোবল  থেকে ?

ইনশা আল্লাহ্‌  , সবকিছু আলোচনা করা হবে পরবর্তী  পর্বে   ।

প্রথম দুই পর্ব পড়ুন এখানে –

প্রথম পর্ব- http://tinyurl.com/ztlblr4

দ্বিতীয় পর্ব- http://tinyurl.com/hv8yfm5

রেফারেন্সঃ

[১] http://bit.ly/1AbNz5N

 

শেয়ার করুনঃ