বিসমিল্লাহির রহমানীর রহীম

অতিরিক্ত হস্তমৈথুন আপনাকে মানসিকভাবে দুর্বল, ভীতু আর লজ্জিত করে রাখবেঃ

হস্তমৈথুনের কারণে আপনার কি কি মানসিক সমস্যা হবে সেটা আগেই আলোচনা করা হয়েছে (পড়ুন আগের পর্বগুলো)। আপনি সবসময় অস্থিরতা বোধ করবেন, একটা পাপবোধে নিমজ্জিত থাকবেন ভাবে থাকবেন। আপনি চাইলেও স্বাভাবিক হতে পারবেন না। কারণ হস্তমৈথুন আপনাকে ভিতর থেকে শেষ করে ফেলছে। গ্রাস করে ফেলছে আপনার আবেগ-অনুভূতিগুলো।

সত্যি কথা বলতে আমি নিজেও এরকম অবস্থার মাঝে গিয়েছি। আমি অনেক চেষ্টা করেছি স্বাভাবিক থাকতে কিন্তু ভিতর থেকে কোন ইচ্ছা জাগতো না, কোন জোর পেতামনা। কিন্তু যখন হস্তমৈথুন বাদ দিলাম ,অনেক ক্ষেত্রেই আমার ভিতরে পরিবর্তন আসতে শুরু করলো। আমি স্বাভাবিকভাবেই মানুষজনের সঙ্গে কথা বলতে পারি এখন। এজন্য কোন জড়তা বা ভীতি এগুলো কাজ করে না।

(বি.দ্র. এখানে মূল লেখকের কথা বলা হয়েছে)

ক্রমাগত হস্তমৈথুন আপনার আত্মনিয়ন্ত্রণ কমিয়ে দেবেঃ

সত্যি কথা বলতে কথা বলতে ক্রমাগত হস্তমৈথুন আপনার আবেগের উপর নিয়ন্ত্রণ দিনদিন কমিয়ে দিবে। কেন কিভাবে কমাবে তা নিয়ে আগেই আলোচনা করা হয়েছে। এখন দেখা যাক এগুলোর ফলে কি কি সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।

মেয়েরা কিন্তু তাদের জীবনসঙ্গী হিসেবে পুরুষালি স্বভাবের ছেলেদেরই বেশি প্রাধান্য দেয়। আত্মনিয়ন্ত্রণহীন বা অনেকটা লুতুপুতু স্বভাবের ছেলেদের কিছু সময়ের জন্য ভালো লাগলেও বা কাছাকাছি থাকলেও কখনই এদের মতো কাউকে জীবনসঙ্গী হিসেবে চায় না।

আবেগ নিয়ন্ত্রণ করা আসলেই একটি বড় যোগ্যতা। আপনি আপনার মনের আবেগে ভেসে হারিয়ে যাচ্ছেন না ,এই যোগ্যতাকে কখনই ছোট করে দেখার উপায় নেই। আত্মনিয়ন্ত্রণ শুধু আমাদের মানসিক স্বাস্থ্যের জন্যই ভালো না, আমাদের ব্যক্তিত্বও গড়ে উঠে এর উপর ভিত্তি করে।

আর হস্তমৈথুনের ফলে আপনার এই আত্মনিয়ন্ত্রণের ক্ষমতাটাই শেষ হতে থাকে। আপনার মন হতে থাকে অস্থিরতায় ভরপুর। অল্পতেই নিয়ন্ত্রণ হারান নিজের প্রতি আবেগ তাড়িত হয়ে। হতাশা , কাজে অনীহা এই সব কিছুই আসলে এটার ফল।

অথচ আপনি শুধু হস্তমৈথুন করা থেকেই বিরত থেকে দেখুন ,আপনার জীবন থেকে এই সব হতাশা ,অস্থিরতা দূর হয়ে যাবে।

আগে যেসব ব্যাপারে আপনি অল্পতেই অতিরিক্ত আবেগ তাড়িত হয়ে পড়তেন, উত্তেজিত হয়ে পড়তেন , সেগুলো আপনি এখন  আর গুরুত্বপূর্ণ কিছু ভাববেনই না। এবং নিজেই এখন বুঝতে পারবেন যে আপনি কতটা বোকাই না ছিলেন!

হস্তমৈথুনের ফলে আপনি শারীরিকভাবে অনেক নমনীয়, ভঙ্গুর হয়ে পড়বেনঃ

আমাদের শরীর হচ্ছে আমাদের মনের আয়নাস্বরূপ। আপনি আপনার মনের ভিতরকার অবস্থা বেশি দিন চাপা দিয়ে রাখতে পারবেন না । আপনার কথাবার্তা,কাজকর্ম,অভিব্যক্তির মাধ্যমেই এগুলো ফুটে ওঠে।

আর হস্তমৈথুনের কারণে আপনার মনের ভিতরে ক্রমাগত অস্থিরতা আপনি লুকিয়ে রাখবেন যেখানে আপনি আপনার মনের জোরটাই ধ্বংস করে ফেলছেন? এটা আপনি পারবেনও না। আপনার সাথে কেউ কথা বললেই তা বুঝতে পারবে যে আপনার মনের ভিতরে অস্থিরতা কাজ করছে।

আর মানসিকভাবে দুর্বল হবার কারণে আপনার আচরণও হবে সেরকমই- ভীত, অবসাদগ্রস্ত, কোন কিছু ভালো না লাগা।

আপনি ভাবেন যে আপনি তো আপনার অস্থিরতার কথা কাউকে বলছেন না, আপনার নিজের মাঝেই তা রেখেছেন কিন্তু আপনার আচরণ তা ঠিকই প্রকাশ করে দিচ্ছে।

আপনি এই অবস্থা থেকে মুক্তি চান? আপনি চান আপনার আচরণ আরও দৃঢ় প্রত্যয়ী হোক? প্রথমে তাহলে আপনার হস্তমৈথুনের অভ্যাস বাদ দিন। তারপর দেখুন কি হয়।

হস্তমৈথুন আপনার আত্মবিশ্বাস নষ্ট করে দেয়ঃ

মাস্টারবেশনের ঠিক পরের অবস্থাটার কথা চিন্তা করুন, আপনি হস্তমৈথুন  করে ঠান্ডা হয়ে শুয়ে পড়লেন বিছানায়, বদ্ধ ঘরের স্যাঁতস্যাঁতে বাতাসে  দলবেঁধে ভেসে বেড়াতে লাগলো জীবনের সেই সব  প্রশ্নগুলো যার উত্তর আপনি এখনো পাননি, একে একে আসতে শুরু করল জীবনের হিসেব না মেলা সব ঘটনাগুলো। মন খারাপ হওয়া শুরু হল আপনার।‘ধুর! শালা! আমার জীবনটা তো পুরোপুরিই নষ্ট হয়ে গেল, আমি একটা ফেলটুস, আমি একটা গান্ডু, আমি কিচ্ছু করতে পারি না, আমার দ্বারা কিসসু হবে না’

বড় হতে হলে,সফল হতে হলে আত্মবিশ্বাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ এক ফ্যাক্টর। হস্তমৈথুন   আপনার নিজের ওপর বিশ্বাসটাকে একেবারেই গুঁড়িয়ে দেয়। এক-দুই মাস হস্তমৈথুন  থেকে দূরে থাকুন। দেখবেন আপনার ভেতর আত্মবিশ্বাস টইটম্বুর হয়ে আছে।

অতিরক্ত হস্তমৈথুন আপনার মনোযোগ কমিয়ে দেয়ঃ

২০০১ সালের একটা গবেষণার ফলাফল অনুযায়ী, হস্তমৈথুন করার ৩০ মিনিটের মাঝে

Noradrenaline (Norepinephrine)এর পরিমাণ অনেক কমে গিয়েছে।

এর ফলে কি হবে?

কারণ Noradrenaline [১] এমন একটা হরমোন যা আপনার কোন জিনিসের প্রতি অখণ্ড মনোযোগ ধরে রাখতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

আর সেই জিনিটাই আপনি হস্তমৈথুন করে কমিয়ে ফেলছেন , আপনার মনোযোগ তাহলে থাকবে কীভাবে!!!!!!

এছাড়া আপনি তো হস্তমৈথুন করে আপনার Dopamine,Testosteroneএগুলোরও তো স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরত আসতে সময়ের দরকার হয়ে পড়ে।

একটা বৈজ্ঞানিক গবেষণার ফলাফল অনুযায়ী, হস্তমৈথুনের পরবর্তী এই অবস্থা কাটিয়ে স্বাভাবিক অবস্থায় আসতে অন্তত ২ সপ্তাহ সময় লাগে[২]

চিন্তা করে দেখুন, হস্তমৈথুন  করার দিনটাতে আপনি ক্লাসে, পড়ার টেবিলে বা অন্য কোন কাজে   কি মনযোগ দিতে পারেন, না সবসময় মাথার মধ্যে লাগামছাড়া চিন্তা ভাবনা ঘোরাফেরা করে?

চলবে ইনশা আল্লাহ …

(লস্ট মডেস্টি অনুবাদ টিম কর্তৃক অনূদিত)

মূল লিখাটিঃhttps://tinyurl.com/y76a7cna

রেফারেন্সঃ

[১] https://goo.gl/sHwjQ7

[২] https://goo.gl/cZSbbu

পড়ুন –

পর্বত জয়ের প্রতিজ্ঞা – https://bit.ly/2Mo58dj

চোরাবালি প্রথম পর্ব – https://bit.ly/2ObItTt
চোরাবালি দ্বিতীয় পর্ব – https://bit.ly/2Qm0j7D
চোরাবালি তৃতীয় পর্ব – https://bit.ly/2p0HR8l
চোরাবালি চতুর্থ পর্ব – https://bit.ly/2QoRtGb
চোরাবালি পঞ্চম পর্ব- https://bit.ly/2Nzoh0M
চোরাবালি সপ্তম পর্ব- https://bit.ly/2x9hr81
চোরাবালি অষ্টম পর্ব- https://bit.ly/2NAhrbd
মাস্টারবেশন কী মাসলগ্রোথ এবং এথলেটিক পারফরম্যান্সের ক্ষতি করে?- https://bit.ly/2NzycUa
মিথ্যের শেকল যতো- https://bit.ly/2QpkT7f
সমকামিতা এবং হস্তমৈথুন আদিম মানুষের মধ্যে বিরল!- https://bit.ly/2CQOOT2
শেয়ার করুনঃ